করোনা ভাইরাসের জেরে এবার এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি হিসেবে নিজের নাম খোয়ালেন মুকেশ আম্বানি

এতদিন ধরে আমরা জানতাম এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি হলেন মুকেশ আম্বানি। কিন্তু শিল্পপতি মুকেশ আম্বানি এখন আর এশিয়ার ধনী ব্যক্তি নন। এনার জায়গায় এশিয়ার সবথেকে ধনী ব্যক্তি হলেন ‘আলিবাবা’ গ্রুপের কর্ণধার জ্যাক মা। করোনা ভাইরাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার কারণে এবং গত তিন দশকে অপরিশোধিত তেলের দামের পতনের কারণের ফলে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের কর্ণধার মুকেশ আম্বানি এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তির শিরোপা হারালেন।

তাকে দুই নম্বরে করে দিয়ে বছর দুয়েক আগে খোয়ানো নিজের জায়গা করে নিলেন জ্যাক মা। ব্লুমবার্গ বিলিওনেয়ার্স ইনডেক্সের তরফ থেকে মঙ্গলবার এই ঘোষণা করা হয়েছে। করোনা ভাইরাস সারাদেশে যেভাবে থাবা বসাচ্ছে তাতে গোটা দেশে আর্থিক মন্দা সৃষ্টি হতে পারে বলে অনেকেই আশঙ্কা করছেন। এখনো পর্যন্ত বহু মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন এবং বহু মানুষ এখনো অসুস্থ রয়েছেন। রিপোর্ট বলছে এর কারণেই একদিনে মুকেশ আম্বানির মোট সম্পদের পরিমাণ কমেছে 580 কোটি ডলার।

এর ফলে আলিবাবা গ্রুপের কর্ণধার জ্যাক মা এর মোট সম্পদের থেকে রিলায়েন্স গ্রুপের কর্ণধার মুকেশ আম্বানির মোট সম্পদের 260 কোটি ডলার কম রয়েছে। আলিবাবা গ্রুপের কর্ণধার জ্যাক মা 2018 সালের মাঝামাঝি সময়ে এশিয়ার সবথেকে ধনী ব্যক্তি শিরোপা হারিয়েছিলেন। আর আজকে সেই ব্যক্তি সাড়ে 4 হাজার 400 কোটি ডলারের সম্পদের মালিক হয়ে এশিয়ার সবথেকে ধনী ব্যক্তির খাতায় নাম লিখিয়েছেন আবার।

গত তিন দশকে তেলের দাম সর্বনিম্ন হয়ে পড়ার কারণে এবং সারাদেশে যে পরিমাণে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে যাচ্ছে তার কারণে দেশে তীব্র আর্থিক মন্দার আশঙ্কা ঘনীভূত হচ্ছে। আর এর ফলে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ আর এক বছরের মধ্যে বাজারে তার সমস্ত ধারকার্য কে শুন্যতে নামিয়ে আনতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। এছাড়াও এর সঙ্গে সঙ্গে রিলায়েন্স শেয়ার দর অনেকটাই নীচে নেমে গেছে হু করে। সোমবার শেয়ার দর কমে দাঁড়িয়েছে 12 শতাংশে। 2009 সালের পর থেকে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ার দর এতটা কমেনি।

করোনা ভাইরাস এর ফলে আলিবাবা গ্রুপের উপর কোনো প্রভাব পড়েনি তা বলা ভুল। তবে সারা বিশ্বে তাদের যে ক্লাউড কম্পিউটিং এবং মোবাইল অ্যাপসের ব্যবসা রমরমিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে তাতে সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিয়েছে জ্যাক মা’র সংস্থা আলিবাবা গ্রুপ।