শুধু Make In India নয়, এবার থেকে Make For the World- এর কথাও ভাবতে হবেঃ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী…

আজ আরও একবার স্বাধীনতা দিবসের দিন লালকেল্লা থেকে আত্মনির্ভর ভারত গড়ে তোলার বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভারতবাসীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন দেশে তৈরি হওয়া জিনিস কে নিয়ে সর্বদা গর্ব করা উচিত ভারতবাসীর, এখন ভারতের একটাই মন্ত্র হওয়া উচিত ভোকাল ফর লোকাল (Vocal for Local)। শুধু তাই নয় এদিন তিনি আরো বললেন এবার শুধু Make in India নয় এবার থেকে ভারতকে Make for the world নিয়ে ভাবতে হবে।অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রীর কথায় এটা স্পষ্ট যে, এবার থেকে শুধু ভিন্ন দেশ থেকে আমদানি বন্ধ করা নয়, দেশের জিনিসপত্র তৈরি করে বিদেশেও রপ্তানি শুরু করতে হবে ভারতকে।

 

এর জন্য স্বাধীনতা দিবসের দিনই এর জন্য সংকল্প নিতে বললেন তিনি। দেশে আত্মনির্ভর হওয়ার প্রসঙ্গ তুলে এনে তিনি বললেন এর আগে দেশে N-95 মাক্স তৈরি হতো না, পিপিই কিট তৈরি হত না তবে এখন তৈরি হচ্ছে।তাছাড়া আগে দেশের কৃষকের রাজা উৎপাদন করতেন তা নিজের ইচ্ছামত বিক্রি করতে পারতে না তবে এবার সেটা সম্ভব হয়েছে।চায়না প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য দেশ দিনদিন আত্মনির্ভর হয়ে উঠলে বিশ্বের অর্থনীতিতে ভারতের গতি বাড়বে। আর এক্ষেত্রে দেশবাসীর উপর ভরসা রেখেছেন তিনি কথা তিনি জানান।

তাই আজকের এই বক্তব্য থেকে তুলে ধরেন আগামী বছর যখন 75 তম স্বাধীনতা দিবসে পা দিব আমরা তখন যেন আমরা আমাদের সেই সংকল্প পূরণ করতে পারি সেই সংকল্প নিতে হবে আমাদেরকে। আত্মনির্ভর ভারতের পথে এগোতে গেলে আমাদের নিজেদের যোগ্য হতে হবে।আত্মবিশ্বাসে ভরা ভারতই আত্মনির্ভর হয়ে উঠবে আগামী দিনে।তাছাড়া এই মুহূর্তে ভারত শুধু নিজেদেরই নয় বাইরের দেশগুলোকেও সাহায্য করে চলেছে এই মহামারীর সময়ে তাছাড়া ভারত আত্মনির্ভর পথে এগোচ্ছে বলেই এটা সম্ভব হচ্ছে। তাছাড়া এই মুহূর্তে বিদেশি বিনিয়োগে ভারত রেকর্ড গড়ে তুলছে 18 শতাংশ বিনিয়োগ বৃদ্ধি হয়েছে এক্ষেত্রে ভারত নানা ক্ষেত্রে কাজ করে চলেছে।

 

গোটা দেশকে একসাথে জুড়তে এবং ডিজিটাল করে তুলতে যে সংকল্প নেওয়া হয়েছে সেখানে এক হাজার দিনের মধ্যে দেশে প্রায় ছয় লক্ষ গ্রামে অপটিক্যাল ফাইবারের কাজ পূরণ করা হবে। আর আগামী দিনে ভারতে জাতীয় শিক্ষানীতিতে বদলা নিতে চলেছে তাতে একজন ভারতবাসী হিসেবে শিকড়ের সঙ্গে জুড়ে থেকেও বিশ্ব নাগরিক হতে পারা যাবে।আজ দেশজুড়ে করোনা সংকটের কথা তুলে ধরতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী জানান এর আগে সারা দেশজুড়ে শুরুতে 300 টি করে করোনা টেস্ট করা হতো তবে এখন প্রতিদিন প্রায় সাত লখেরও মানুষের পরীক্ষা করা হচ্ছে ভারতে।

ইতিমধ্যে ভারতের তিনটি আলাদা আলাদা ভ্যাকসিন তৈরি করার কাজ আলাদা পর্যায়ে রয়েছে। একবার বিজ্ঞানীদের থেকে সবুজ সংকেত পাওয়ার পর গোটা ভারতে ছড়িয়ে দেওয়া হবে কীভাবে তা তৈরি হবে এই ভ্যাকসিন। আর তার পরিকল্পনাও সরকার তৈরি করে রেখেছে।অন্যদিকে কাশ্মীরের প্রসঙ্গ তুলতে গিয়ে তিনি জানান আজ এক বছর হয়ে গেল যখন কাশ্মীর থেকে 370 ধারা তুলে নেওয়া হয়েছে, এই মুহূর্তে কাশ্মীর নতুন জীবনের পথে এগিয়ে যেতে শুরু হয়েছে আর এবার সেখানে ভোট গণনা থেকে শুরু করে নতুন বিধায়ক, মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হবেন। আর লাদাখের বহুদিনের স্বপ্ন এবার সরকার পূরণ করেছে।