‘বাংলায় এনআরসি নয়’,অমিত শাহকে হুঁশিয়ারি পার্থর..

এবারের লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যের প্রচার উত্তরবঙ্গ থেকেই শুরু করেছেন বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ।আলিপুরদুয়ারে নির্বাচনী প্রচারে অমিত শাহ গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করে বলেন, অনুপ্রবেশকারীদের ভরসায় উনি জিতে যাবেন। আর আমি উনাকেই কথা বলছি যে এই অনুপ্রবেশ কারীদের বাংলায় রাখা যাবে না। বাংলায় মোদি সরকার ক্ষমতায় এলে এনআরসি হওয়া থেকে কেউ আটকাতে পারবেনা। এর পাশাপাশি হিন্দু শরণার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন,’ আপনারা সবাই নাগরিকত্ব পাবেন কারণ আপনারা সবাই ভারতের অঙ্গ। ‘ আলিপুরদুয়ারের অমিত শাহের এই বক্তব্যের পর পাল্টা জবাব দেয় তৃণমূল।

তৃণমূল কংগ্রেস মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন,’ আমাদের ঘোষিত নিতি যে বাংলায় এনআরসি হতে দেব না। বাংলার মানুষ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে আছেন। যারা মানুষে মানুষে বিভেদ সৃষ্টি করছে তাদের যথাসময়ে প্রতিহত করবে।’ পার্থ চট্টোপাধ্যায় আরও বলেন যে, ‘ওরা তো জিতবেই না, তাহলে এনআরসি-র প্রশ্ন আসছে কোথা থেকে? আগে ওরা দিল্লির গদি সামলাক, নাহলে আর কিছুদিন পরে সেটাও হাতছাড়া হয়ে যাবে।ওরা কোথায় এনআরসি হবে আর কোথায় হবে না সেটা নিজেরাই ঠিক করতে পারছে না। এক জায়গায় বলছে এনআরসি হবে, আর এক জায়গায় বলছে এনআরসি হবে না। ‘ প্রসঙ্গত কলকাতায় মেয়ো রোডে সভা করার সময় বাংলাতে 22 টি আসন পাওয়ার কথা বলে গিয়েছিলেন অমিত শাহ। আলিপুরদুয়ারের সভা করতে গিয়ে তিনি বাংলা থেকে 23 টি আসন জেতার কথা বলেন। অমিত শাহের এই বক্তব্যকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন,” 23 টি আসন পাওয়া তো অনেক দূরের কথা একটি আসন পায় কিনা সেটাই সন্দেহ। আর বিজেপির পদ্মফুল বাংলাতে ফুটবে না পাকে ফুটবে সেটা ভোটের ফলাফলে বোঝা যাবে।” কলকাতাতে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ” বাংলায় গুগোল সম্বন্ধে ওনার কোনও ধারনাই নেই।

আমি বহুবার তাকে বলেছি একটা ভূগোলের বই কিনতে তিনি শুনেননি। তাহলেই তিনি কোথায় কি রয়েছে তা স্পষ্ট ভাবে বুঝতে পারবেন। ” বেশ কয়েকদিন আগে নাগরিকত্ব ইস্যুতে গোটা আসাম উত্তপ্ত হয়ে পড়ে। সেখানে সেই সময় জাতীয় নাগরিকপঞ্জী করণের ফলে 40 লক্ষ মানুষের নাম বাদ যায়। ওই সময় ওই সমস্ত মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন এনআরসির বিরোধিতা করেছিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আসাম এর মত উত্তর-পূর্বাঞ্চলেও নাগরিকত্ব সংশোধনী দিল কিরে ফের উত্তপ্ত হয়ে পড়ে। এখানে বলা হয়েছে, প্রতিবেশী মুসলিম প্রধান দেশ যখন বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তানের অমুসলিমদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। তৃণমূলের অভিযোগ, ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধান অমান্য করে ভারতের ধর্মের ভিত্তিতে বিজেপি নাগরিকত্ব দেওয়ার চেষ্টা করছে।

তাই আলিপুরদুয়ারে এসে তৃণমূলকে এই ইস্যু নিয়ে টার্গেট করেছে অমিত শাহ। লোকসভা ভোটের আগে ফের এনআরসি ইস্যুতে সরব হয়েছে দুই প্রধান রাজনৈতিক দল।

Related Articles

Open

Close