সোমবার থেকে রাজ্যজুড়ে লাগু করা হবে নতুন নিয়ম, বেরিয়ে এলো রাজ্য সরকারের নতুন নির্দেশিকা..

করোনা সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে জারি ছিল লকডাউন আর এর প্রভাব যে ভারতের অর্থনীতিতে পড়েছে তা ভালোভাবে বোঝা যাচ্ছে কারণ এবার পঞ্চম দফার লকডাউন চলাকালীন একাধিক ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছে দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করে তোলার জন্য। এরই পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশের অর্থনীতির হাল শুধরাতে “আত্মনির্ভর ভারতের” ঘোষণা করেছেন। যেখানে দেশের জনগণকে বিদেশী পণ্য বর্জন করে দেশীয় পণ্য কেনাতে উৎসাহ জানিয়েছেন।

অন্যদিকে রাজ্য সরকারের তরফ থেকেও কিছুদিন আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে তারা আগামী 8 জুন থেকে সমস্ত সরকারি সংস্থানগুলি খুলতে চলেছেন এবং সেখানে তারা 70% কর্মী নিয়ে কাজকর্ম চালাবেন।তবে এই মুহূর্তে পরিস্থিতি ভয়াবহ, কারণ লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে দিনদিন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।পরিস্থিতি ক্রমশ হাতের বাইরে বেরোতে দেখা যাচ্ছে তবে আমরা জানি পয়লা জুন থেকে মোটামুটি সকল কিছুর ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছে, চালু করা হয়েছে “আনলক-1 ” তারপরেই কিন্তু দেখা যাচ্ছে একাধিক ক্ষেত্রে করোনা সংক্রমণ বলা হোক কিংবা মৃত্যুর সংখ্যা বলা হয় সেটি ক্রমশ বাড়ছে।

তবে এবার নবান্নের তরফ থেকে সরকারি কর্মীদের উদ্দেশ্যে এক বিশেষ বিজ্ঞপ্তি জারি করা হল গতকাল বৃহস্পতিবার দিন। নবান্নের তরফে জারি করা এই নির্দেশিকাতে জানানো হয়েছে এবার থেকে সমস্ত সরকারি দপ্তর, পৌরসভা থেকে পঞ্চায়েতের সব কিছুর ক্ষেত্রে এই নিয়ম প্রযোজ্য করা হবে আর এই নিয়মে বলা হয়েছে সমস্ত কর্মীদের সপ্তাহে অন্তত 3 দিন অফিস করতেই হবে।তবে এক্ষেত্রে ছাড় মিলবে স্কুল ও কলেজের শিক্ষকদের কারণ এই মুহূর্তে যেহেতু বন্ধ রয়েছে স্কুল-কলেজে সেহেতু তাদের ছাড় দেওয়া হয়েছে।

এর পাশাপাশি নবান্নের তরফ থেকে আরও এক বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে যেখানে জানানো হয়েছে রাজ্যজুড়ে রাত 9 টা থেকে সকাল 5 টা পর্যন্ত বাড়ী থেকে বেরনো যাবে না জরুরী কোন কাজ ছাড়া।অকারনে কোন ব্যক্তি যদি বাড়ির বাইরে বেরিয়ে থাকে এইসময় তাহলে তার বিরুদ্ধে আইননত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এর আগে যে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছিল সেখানে জানানো হয়েছিল সন্ধ্যে 7 টা থেকে সকাল 7 টা পর্যন্ত বেরনো যাবে না তবে এবার সেই নির্দেশিকাতে বদল করা হয়েছে এবার, আর এই নতুন নির্দেশিকা লাগু করা হবে আগামী 8 জুন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার থেকে এমনটাই কারী জারি করা এই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।

এক্ষেত্রে আরও একটি সমস্যা সামনে আসছে যেখানে দেখা যাচ্ছে বৃহস্পতিবার থেকে কলকাতায় রাস্তায় পাওয়া যাবে বেসরকারি মিনিবাস এমন ঘোষণা করার পরও মুখ্যমন্ত্রীর, অধিকাংশ বেসরকারি মিনিবাস রাস্তায় নামেনি। অন্যদিকে বেসরকারি যে কোম্পানিগুলি রয়েছে তাদের উদ্দেশ্যে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে বেশকিছু শর্ত মেনে চালু করা যাবে অফিস তবে এক্ষেত্রে তারা কত শতাংশ কর্মী নিয়ে অফিস শুরু করতে চলেছে সেটা তাদের নিজস্ব ব্যাপার বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।