ভূস্বর্গে তৈরি হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে উচ্চতম আশ্চর্য স্থাপত্য, উচ্চতায় হার মানবে আইফেল টাওয়ারও

নয়া মুকুট মাথায় পরতে চলেছে ভূস্বর্গ। জম্মু ও কাশ্মীরের (Jammu and Kashmir) চেনাব নদীর উপরে ধনুকের মতো বাঁকানো বিস্ময়কর রেলসেতুটির (Rail bridge) কাজ প্রায় শেষ। যা হতে চলেছে পৃথিবীর উচ্চতম রেলসেতু। উচ্চতায় যা হার মানাবে আইফেল টাওয়ারকেও! বৃহস্পতিবার সকালে টুইট করে নির্মীয়মাণ সেতুটির ছবি শেয়ার করলেন কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল (Piyush Goyal)। সেই সঙ্গে জানিয়ে দিলেন, শিগগিরি সম্পূর্ণ হয়ে যাবে সেতুটি।

ধনুকাকৃতি এই সেতু কাশ্মীরকে ভারতের বাকি অংশের সঙ্গে যুক্ত করবে। ১ হাজার ২৫০ কোটি টাকা খরচ করে  তৈরি হয়েছে এই সেতু।  চেনাব নদী থেকে এই সেতুটির উচ্চতা ৩৫৯ মিটার। প্যারিসের আইফেল টাওয়ারের থেকেও উঁচু এই সেতু । এর দৈর্ঘ্য ১ হাজার ৩১৫ মিটার। নিঃসন্দেহে এই সেতু  পর্যটকদের কাছে এক অন্যতম আকর্ষণের কেন্দ্র হতে চলেছে৷

২০১৭ সালের নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছিল সেতুর মূল ধনুকাকৃতি কাঠামোটির নির্মাণকাজ। গত বছর করোনা অতিমারীর ধাক্কায় সেই নির্মাণকাজ খানিকটা ব্যাহত হয়েছিল৷ তবে আবার  নতুন করে কাজে গতি এসেছে সম্প্রতি। আশা করা হচ্ছে,  দ্রুত সম্পূর্ণ হয়ে যাবে সেতুটির নির্মাণ।

কী কী বিশেষত্ব রয়েছে এই সেতুর?

রিখটার স্কেলে ৮ পর্যন্ত ভূমিকম্পের তীব্রতা সহ্য করতে পারবে এই সেতু।

অত্যন্ত শক্তিশালী বিস্ফোরকের আঘাত অনায়াসে সহ্য করে নিতে পারবে এটি।  কাশ্মীরের মতো স্পর্শকাতর এলাকার মানুষদের জন্য এটা অনেকটাই স্বস্তির৷

এই  প্রকল্পের শুরুয়াৎ ২০০৪ সালে। তবে বছর পাঁচেকের মধ্যেই কাজ বন্ধ হয়ে যায়৷ যাত্রীদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে এই আশঙ্কায়  তৎকালীন কংগ্রেস সরকার কাজ বন্ধ করে । কিন্তু মোদির আমলে নতুন করে শুরু হয় সেতুর নির্মাণ। অবশেষে তা শেষ হওয়ার মুখে।

সোশ্যাল, ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের জন্য নতুন নির্দেশিকা আনছে কেন্দ্র সরকার, এবার থেকে সময়ে সময়ে দিতে হবে রিপোর্ট

পর্যটকদের কাছে ভূস্বর্গের আকর্ষণ বরাবর৷,  সন্ত্রাসের আবহে বহু ক্ষেত্রেই পিছু হটতে হয় তাঁদের। তবে শেষ পর্যন্ত যে পর্যটকরা এখানে আসেন তাঁদের অভিজ্ঞতার ঝুলি ভরে যায় চোখধাঁধানো নৈসর্গিক সৌন্দর্যে। চেনাব নদীর উপরের এই সেতু নিঃসন্দেহে তাঁদের আকর্ষণের তালিকার অন্যতম সংযোজন হতে চলেছে।