রেশন কার্ডে ভুল রাখবেন না কোনদিনই এই তথ্য-গুলি, নাহলে হতে পারে জরিমানা সহ 5 বছরের জেল

প্রতিটি মানুষের ন্যূনতম চাহিদা হল খাদ্য। খাবারের চাহিদা মেটানোর জন্য কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকার মিলে খাদ্য সুরক্ষা প্রকল্পের জন্য রেশন কার্ড-এর ব্যবস্থা করেন। রেশন কার্ডের মাধ্যমে ন্যূনতম টাকা খরচ করে খাদ্য সামগ্রী পাওয়া যায়। কিন্তু কোনো মানুষ যদি ইচ্ছাকৃতভাবে রেশন কার্ডে ভুল তথ্য দিয়ে থাকেন তবে তার শাস্তি স্বরূপ ওই ব্যক্তির ৫ বছরের জেল পর্যন্ত হতে পারে বলে জানানো হয়েছে। এপিএল, বিপিএল এবং অন্ত্যোদয় এই তিন ধরনের রেশন কার্ড ভারতবাসীদের জন্য প্রদান করা হয়।

 

যারা দারিদ্র্যসীমার উপরে বসবাস করছেন তাদের দেওয়া হয় এপিএল কার্ড। বিপিএল কার্ড পেয়ে থাকেন যারা দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করছেন। আর যে সমস্ত ব্যক্তিরা একেবারেই দরিদ্র তাদের জন্য রয়েছে অন্ত্যোদয় কার্ড। এই তিন ধরনের কার্ডের খাদ্য সামগ্রীও পাওয়া যায় তিন রকমের। যেমন অন্ত্যোদয় কার্ডের গ্রাহকরা এপিএল এবং বিপিএল কার্ডের গ্রাহকদের থেকে খাদ্য সামগ্রী বেশি পান। তাই অনেকেই তথ্য লুকিয়ে অন্ত্যোদয় কার্ড করিয়ে নেন। কিন্তু সেই সমস্ত ব্যক্তি অন্ত্যোদয় কার্ডের গ্রাহক হওয়ার যোগ্য নয়।

আবার অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় একজন ব্যক্তির মৃত্যুর পরেও তার পরিবারের লোকেরা তার রেশন কার্ড দেখিয়ে খাদ্য সামগ্রী তোলেন। এই সমস্ত জালিয়াতিকে রোধ করার জন্যই আধার কার্ডের সাথে রেশন কার্ডের লিঙ্ক পদ্ধতি চালু করা হয়েছে।

 

সরকারের তরফ থেকে নির্দেশ জারি করা হয়েছে যে রেশন কার্ডে জালিয়াতি তথ্য ধরা পড়লে গ্রাহকের ৫ বছরের জেল হওয়া সাথে মোটা টাকা জরিমানা দিতে হতে পারে। যদি এই দুর্নীতির ঘটনা কোনো ব্যক্তির চোখে পড়ে তারা সরকারের হেল্পলাইন নম্বর বা ইমেইল করে অভিযোগ জানাতে পারেন।