সুখবর বয়ে নিয়ে এলো নাসার মহাকাশযান “জুনো”, বৃহস্পতি গ্রহে মিলল জলের খোঁজ…

মঙ্গল গ্রহে আদেও কী কোন প্রাণের অস্তিত্ব রয়েছে তা নিয়ে বহু বছর ধরে গবেষণা চলে আসছে এবং বর্তমানে ও গবেষণা চলছে। মঙ্গল গ্রহে মানুষের বসবাস করার উপযুক্ত তা নিয়েও বহুদিন ধরে গবেষণা চলছে। এই গবেষণা চলাকালীন মঙ্গলে জলের খোঁজ পাওয়া গিয়েছিল। এই সমস্ত কিছুর মধ্যে সৌরজগতের আরও একটি গ্রহের সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ করল নাসার বিজ্ঞানীরা। যেমন তেমন গ্রহ নয় একেবারে সৌরজগতের বৃহত্তম গ্রহে জলের সন্ধান দিল নাসার বিজ্ঞানীরা।

সম্প্রতি কয়েক দিন আগে, নেচার অ্যাস্ট্রোনমি জার্নালে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে নাসার তরফ থেকে জানানো হয়েছে, বৃহস্পতি গ্রহের বায়ুমণ্ডল এর সামান্য পরিমাণ জলের সূত্র পেয়েছে নাসার তরফ থেকে পাঠানো মহাকাশযান ‘জুনো’। নাসার তরফ থেকে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ করার পর তা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলছে আদৌ কি তাহলে বৃহস্পতি গ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব রয়েছে। এই সম্পর্কে মহাকাশ বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, সৌরজগতের সর্ববৃহৎ গ্রহ বৃহস্পতি গ্যাসীয় এবং তরল পদার্থে ভর্তি।

তাই এদের মধ্যে সব সময় কোন না কোন রাসায়নিক বিক্রিয়া চলতেই থাকে। সমস্ত গ্যাসগুলির মতো বৃহস্পতি গ্রহে রয়েছে অক্সিজেন এবং হাইড্রোজেন। এবার অন্যান্য গ্যাসের মধ্যে বিক্রিয়া এই দুই গ্যাসের মধ্যে বিক্রিয়া হলে সেখান থেকে জল উৎপন্ন হতে পারে। কিন্তু অনুকূল পরিস্থিতি এটি উৎপন্ন হবে কিনা তা নিয়ে বিজ্ঞানী মহলে প্রশ্ন ছিল। এনিয়ে বিজ্ঞানী মহলে একাংশ জানিয়েছিলেন, এমন পরিবেশ বৃহস্পতিতে পাওয়া সম্ভব নয়।


কিন্তু নাসার তরফ থেকে পাঠানো এই মহাকাশযান ‘জুনো’ সমস্ত প্রশ্নের উত্তর খুঁজে বার করেছে।নেচার জার্নালে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা গিয়েছে,’ 2011 থেকে 2016 সালের মধ্যে দুবার বৃহস্পতি গ্রহে পাঠানো হয়েছিল এই মহাকাশযান জুনোকে। এবং দুবার জুনো প্রয়োজনীয় তথ্য এনে দিয়েছে নাসাকে। তার পাঠানো তথ্যের উপর ভিত্তি করে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এই গ্রহের বায়ুমণ্ডল অন্তত 0.25 অংশ জল রয়েছে। আর এটা বিজ্ঞানীদের প্রত্যাশার থেকে অনেকটা বেশি।

Related Articles

Close