আবারো জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, ভাষণে থাকতে চলছে বেশ কিছু বড় চমক

যত সময় বাড়ছে তত প্রাণঘাতী হয়ে উঠছে এই নোভেল করোনা ভাইরাস, যত দিন বাড়ছে তত এর পরিস্থিতি যেন আয়ত্তের বাইরে চলে যাচ্ছে এখনো পর্যন্ত এই ভাইরাসের জেরে বিশ্বের লক্ষাধিক মানুষ নিজের প্রাণ হারিয়েছে। আর অন্যদিকে মার্কিন মুলুকে এই করোনার জেরে মৃত্যু সংখ্যা পিছিয়ে দিয়েছে ইতালি এবং চীন শহরকেও। এখনো পর্যন্ত এই ভাইরাসের জেরে সবচেয়ে বেশি বিশ্বে যদি কোথাও প্রাণ গেছে সেটা হল সেই মার্কিন মুলুক।

এর পাশাপাশি যদি ভারতের কথা বলা হয় তাহলে ভারতে এই ভাইরাসের জেরে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে 308 জন আর আক্রান্তের সংখ্যা পেরিয়ে গেছে 9000 এর ও বেশি। অন্যদিকে স্বাস্থ্য দপ্তর এর রিপোর্ট অনুযায়ী জানতে পারা গেছে পশ্চিমবঙ্গে এই ভাইরাসের দরুন আক্রান্ত হয়েছে 95 জন আর এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছে সাতজন।যার দরুন এরকম এক পরিস্থিতিকে কন্ট্রোল করতে আগামী তিরিশে এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে সেই লকডাউন এর সময়সীমা কে। তবে যেমনটা আমরা জানি এখনো পর্যন্ত এই বিষয় নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে কোনো স্পষ্ট বিবৃতি বেরিয়ে আসেনি আর কেন্দ্র সরকার দ্বারা যে 21 দিনের লকডাউন জারি করা হয়েছিল তা আগামীকাল শেষ হতে চলেছে।তবে বর্তমানে যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে তার জেরে আরো দু সপ্তাহ লকডাউন ঘোষণা করতে পারে সরকার এমনটাই শোনা যাচ্ছে এবং আগামীকাল তার উদ্দেশ্যে আবারো জাতির উদ্দেশ্যে নিজের বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সকাল 10 টা নাগাদ। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী যা জানতে পারা যাচ্ছে এই দিন তিনি তার বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে আগামী 30শে এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউনের সময় সীমাকে বাড়ানোর ঘোষণা করতে পারেন।তবে শুধু লকডাউন এর সময়সীমা বাড়ানোর সাথে সাথে আরও বেশকিছু ঘোষণা করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এমনটাই সূত্রের খবর।আপাতত প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী যা জানতে পারা যাচ্ছে সেখানে জানা গেছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি তিনটি জোনে ভাগ করতে পারেন দেশকে, যেখানে দেশের বর্তমানে করোনা সংক্রমণের পরিস্থিতি অনুযায়ী এটিকে ভাগ করা হবে।যদিও এর আগে গত শনিবার দিন বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সাথে দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর একটি বৈঠক সম্পন্ন হয়েছে।আর সেই বৈঠকে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা উপস্থিত ছিলেন সেখানে তারা তাদের রাজ্যে এই লকডাউনের সময়সীমাকে বাড়ানোর কথা বলেছিলেন। আর এই লকডাউনের সময়সীমা বাড়ানোর ফলে দেশের অর্থনীতিবিদরা আর্থিক মন্দার সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। তবে এবিষয়ে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছিলেন জীবনের সঙ্গে জীবিকা বাঁচানো গুরত্বপূর্ণ। আর সেই কারণেই এই পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছে কেন্দ্রের তরফে। তবে এখন দেখার বিষয় রয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আগামীকাল জাতির উদ্দেশ্যে যে বক্তব্যটি রাখতে চলেছেন সেখানে কী কী তথ্য বেরিয়ে আসে এর পাশাপাশি দেখার বিষয় রয়েছে যে ভবিষ্যতে এই করোনা পরিস্থিতির মোকাবেলা করতে আরো কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হতে চলেছে কেন্দ্রের তরফ থেকে।

Related Articles

Close