আবারো বড়সড় ধাক্কা খেলো চীন, এবার চীনের ওপর সরাসরি ধাবা বললো মুকেশ আম্বানির সংস্থা

চীনের উপর ক্ষোভ বর্ষাচ্ছে ভারতের মন্ত্রী থেকে শুরু করে বিভিন্ন শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীদের তরফ থেকে। একের পর এক ব্যবসায়ীক চুক্তি থেকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে চীনকে। কিছুদিন আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও রতন টাটার কোম্পানি মিলে চীনকে ব্যবসায়ীক চুক্তি থেকে সরিয়ে দিলেন। চীনের একচেটিয়া আধিপত্য বিস্তার করার মনোভাব এর ফলেই এ ধরনের পদক্ষেপ। তাই এমনই এবার পদক্ষেপ নিতে চলেছে ভারতের সবথেকে বড় শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির কোম্পানি রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড ও সহযোগী কোম্পানি রিলায়েন্স নিউ এনার্জি সোলার লিমিটেড।

সৌর শক্তির ক্ষেত্রে এবার বড়োসড়ো পদক্ষেপ নিল রিলায়েন্স কোম্পানি। নিউ এনার্জি চীনের ন্যাশনাল ব্লু স্টার গ্রুপের থেকে REC সোলার হোল্ডিং আরএসএর ১০০ শতাংশ অংশীদারিত্ব কিনে নিয়েছেন। আর এই চুক্তি হয়েছে ৭৭.১০ কোটি ডলারের। চীনের কোম্পানি REC বহুজাতিক সৌর শক্তি কোম্পানি। আর এই কোম্পানির বিশেষত্ব হল প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন ও উচ্চ দক্ষতার সাথে অর্থনৈতিক সৌরশক্তি প্যানেল তৈরি।

আর গত ২৫ বছর ধরে এই কোম্পানি বিশ্বের প্রথম সারির সোলার প্যানেল আর পলিসিলিকন নির্মাতা কোম্পানির মধ্যে একটি হয়ে উঠেছিল। REC-র সোলার হোল্ডিংস এর প্রধান দপ্তর নরওয়তে, আর এর প্রধান অফিস হলো সিঙ্গাপুরে। উত্তর আমেরিকা, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া, আর এশিয়া-প্যাসিফিকে এই কোম্পানির আঞ্চলিক দপ্তর রয়েছে। নরওয়েতে দুটি আর সিঙ্গাপুরে একটি ম্যানুফ্যাকচারিং ইউনিট ও রয়েছে এই কোম্পানির।

Advertisements

রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড এর চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানি এই কোম্পানি অধিগ্রহণের অবসরে বলেন, আমি REC-র অধিগ্রহণের খুব খুশি। কারণ, এটি সূর্যদেবের অসীম ক্ষমতা আর বছরব্যাপী সৌরশক্তি কাজে লাগাতে সাহায্য করবে। এই অধিগ্রহণে আমাদের নতুন এবং উন্নত প্রযুক্তির বিনিয়োগের কৌশল অনুসারে, দশকের শেষের আগে ১০০ গিগাওয়াট তৈরি ও সবুজ শক্তি তৈরি লক্ষ অর্জন করবে।”

Advertisements

উনি আরো তার বক্তব্যে বলেন, ” ২০৩০ পর্যন্ত ভারতে ৪৫০ মেগাওয়াট নবায়নযোগ্য শক্তির উৎপাদনের প্রধানমন্ত্রী লক্ষ্য পূরণ হবে। এটা ভারতকে জলবায়ু সংকট থেকে উদ্ধার করতে এবং গ্রীন এনার্জিতে বিশ্বগুরু হতে সাহায্য করবে। এর ফলে ভারত আর বিশ্বের বাজারে গ্রাহকদের কম দামে উচ্চ গুণ সম্পন্ন আর বিশ্বাসযোগ্য উৎপাদন মিলবে। গ্রামীণ আর শহর এলাকায় বিকেন্দ্রীভূত ভাবে লক্ষ লক্ষ কাজের অবসর তৈরি হবে। আর এত কিছুর জন্য আমি খুবই উৎসাহী।”