2016 সালে নোট বন্দির পর আবার আরো এক বড় পদক্ষেপ নিতে চলেছেন মোদি সরকার, জুন মাস থেকে হতে চলেছে কার্যকর…

যখন থেকে দেশে দায়ভার নরেন্দ্র মোদী সামলেছেন তখন থেকে দেশে নতুন নতুন চমক দেখতে পাওয়া গেছে। প্রথম দফায় প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর মাঝামাঝি সময়ে নোট বাতিল করে দেশবাসীকে এক নতুন চমক দিয়েছিলেন তিনি। আরো একবার দ্বিতীয় দফাতেও চমক দিতে চলেছেন তিনি তবে এবার তিনি জানিয়েছেন যে চমক হতে চলেছে শুরুতেই। যেমন কি আপনারা সকলেই জানেন গতবার কালো টাকার রমরমা বন্ধ করতে রাতারাতি তিনি বাতিল করে দিয়েছিলেন 500 ও 1000 টাকার নোট।

এবার যে খবরটি উঠে আছে সেটি সম্পূর্ণ আলাদা যেখানে শোনা যাচ্ছে বেকারত্বের কাজ টানতে মোদিজী পদক্ষেপ পরিকল্পনা করতে চলেছেন। তবে এখন প্রশ্ন একটা কি পদক্ষেপ নিতে চলেছেন তিনি?এখনো পর্যন্ত পাওয়া সরকারী দপ্তর এর সূত্র খবর থেকে জানতে পারা গেছে এবার মোদি সরকার অর্থনৈতিক সমীক্ষা করতে চলেছেন দেশজুড়ে।আর এই সমীক্ষায় রিপোর্টের ভিত্তিতেই তৈরি করা হবে দেশে বেকারের সংখ্যা ঠিক কততা পরিমানে রয়েছে।

আর এই সমীক্ষার ভিত্তিতে দেখা হবে দেশে কত পরিমাণ মানুষের কর্মসংস্থানের প্রয়োজন রয়েছে। সেই কারণেই সর্বস্তরে এই সমীক্ষা চালানো হবে।ঠেলাওয়ালা থেকে ফুটপাথে যাঁদের দোকান রয়েছে, তাঁদেরও এই সমীক্ষার আওতায় আনা হবে বলে জানতে পারা গেছে। দেখা হবে অসংগঠিত ক্ষেত্রে কত মানুষ কাজ করেন। সব মিলিয়ে 27 কোটি বাড়ি ও 7 কোটি সংস্থায় সমীক্ষা করা হবে এর দ্বারা।

দেশে ঠিক যেভাবে জনগণনা করা হয় ঠিক সেই কায়দায় এবারে আর্থিক সমীক্ষার কাজ করা হবে। আজ জুন মাসের শেষের দিক থেকে শুরু হয়ে যাবে এই সমীক্ষার কাজ , টানা ছয় মাস চলবে এই কাজ এবং তারপরই রিপোর্ট তৈরি করা হবে।আর এর জন্য 12 লক্ষ সমীক্ষক বাড়ি বাড়ি গিয়ে দোকানে গিয়ে যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ করবেন। আর সেই তথ্যটিকে সম্পূর্ণ যাচাই করে তার ওপর ভিত্তি করে  NSSO ও MSME আধিকারিকরা ফাইনাল রিপোর্ট তৈরি করবেন।তবে এই সমীক্ষার আওতা থেকে চাষবাস ,প্রতিরক্ষা, সরকারি অফিস, সামাজিক সুরক্ষার পরিষেবাগুলি কে বাদ দেওয়া হয়েছে।

যদিও প্রতি বছর আর্থিক সমিক্ষা সরকারি তরফে করা হয়ে থাকে। এবং তার ওপর ভিত্তি করে দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি নিয়ে রিপোর্ট তৈরি করা হয়।আর বাজেট পেশের আগেরদিন সংসদে সেই রিপোর্ট পেশ করে থাকেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।

Related Articles

Back to top button