Categories
দেশ নতুন খবর বিশেষ লাইফ স্টাইল

দেশের সমস্ত নাগরিকদের জন্য ই-পাসপোর্ট চালু করতে চাইছেন মোদী সরকার…

যদিও এক্ষেত্রে 2017 সালেই চালু হয়ে যাওয়ার প্রাথমিক পরিকল্পনা ছিল। তবে সেই সময়ের মধ্যে সম্ভব না হলেও অদূর ভবিষ্যতে সমস্ত ভারতীয়দের জন্য চিপ বসানো ই-পাসপোর্ট বা বায়োমেট্রিক পাসপোর্ট চালু করার পথে জোরকদমে এগিয়ে চলছে কেন্দ্র। তবে এখন যে খবরটি বেরিয়ে আসছে এখানে জানতে পারা যাচ্ছে আগামী বছরের মধ্যে অর্থাৎ 2021 এর মধ্যেই দেশের সমস্ত নাগরিকদের জন্য ই-পাসপোর্ট ইস্যু করার পরিকল্পনা নিয়েছে এক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকার। আর এই কাজটি যাতে দ্রুত গতিতে সম্পন্ন করার জন্য কোন একটি এজেন্সিকে দায়িত্ব দেওয়া হবে কেন্দ্রের তরফ থেকে।

 

প্রথমত এর জন্য উপযুক্ত আইটি পরিকাঠামো গড়ে তোলা হবে ওই এজেন্সির তরফ থেকে। আর তারপর তার সাহায্যে গোটা দেশে কার্যকর করা হবে এই নতুন পরিকল্পনাটিকে। ই-পাসপোর্ট একদিকে যেমন নকল করা কঠিন হবে তেমনি হবে দ্রুত অভিবাসনের ব্যবস্থা। শুধু তাই নয় একবার 2021 সালে ই-পাসপোর্ট সংক্রান্ত পরিকাঠামো তৈরি হয়ে যাওয়ার পর যদি কোন ব্যক্তি চাই ই-পাসপোর্ট এর জন্য আবেদন করতে কিংবা পুরনো পাসপোর্ট রি- ইস্যু করার জন্য, তারাও এ ক্ষেত্রে করতে পারবেন আর এক্ষেত্রে তাদের মিলবে নতুন প্রযুক্তিতে তৈরি ইলেক্ট্রনিক মাইক্রোপ্রসেসর চিপ যুক্ত ই-পাসপোর্ট।

বলে রাখা ভালো এর আগে কিন্তু পরীক্ষামূলক ভাবে কূটনৈতিক পর্যায়ে প্রায় 20,000 ই-পাসপোর্ট কার্ড ইস্যু করা হয়েছিল যেটি ছিল মাইক্রোপ্রসেসর চিপ সিস্টেম।আর ঠিক একই ভাবে এবার সরকার পরিকল্পনা করেছে দেশের সমস্ত মানুষকে ই- পাসপোর্ট বানিয়ে দেওয়ার।আর একবার এজেন্সি নির্বাচন এবং উপযুক্ত পরিকাঠামোর তৈরি হয়ে গেলেই শুরু হয়ে যাবে এর জন্য কাজ। আর এক্ষেত্রে এজেন্সি বাছাইয়ের কাজটি করতে চলেছে বিদেশমন্ত্রক এবং ন্যাশনাল ইনফরমেটিকস সেন্টার। এক্ষেত্রে ই-পাসপোর্ট টিকে এমন ভাবে পার্সোনালাইজ করা থাকবে যাতে সেটিকে জাল বা নকল না করার সম্ভাবনা কমিয়ে ফেলা যায়।

 

প্রাথমিকভাবে এই পাসপোর্ট তৈরির কাজ শুরু করা হবে দিল্লি এবং চেন্নাই-এ। আর তারপর দেশের আরো 36 টি পাসপোর্ট অফিসের সবকটিতেই এই ই-পাসপোর্ট তৈরির কাজ শুরু হয়ে যাবে। প্রসঙ্গত একবার এই পরিকাঠামো তৈরি হয়ে গেলে দেশে ঘণ্টায় প্রায় 10 থেকে 20 হাজার ই-পাসপোর্ট বানিয়ে ফেলা যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।এর আগে গোটা বিশ্বের কাছে ভারতের একটাই ছবি ছিল তারা মনে করেছিল যে ভারত হয়তো কোনদিন প্রযুক্তির দিক থেকে এগোতে পারবে না তবে এখন যেভাবে ভারত ডিজিটাল লেনদেনের ওপর জোর দেওয়ার পাশাপাশি চিপ বসানো ই-পাসপোর্ট ইস্যুর একাধিক ক্ষেত্রে উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহার করছে তার জেরে ভারতের সম্পর্কে বিদেশিদের ধারণা বদলেছে।