অভিযোগ প্রমাণ হলে হতে পারে ছয় মাসের জেল মিকা সিং এর, মামলা উঠল দুবাই আদালতে…

সৌদি আরবের কড়া আইনের খপ্পরে পড়লেন মিকা সিং। মিকা সিংয়ের বিরুদ্ধে এক অনুষ্ঠান চলাকালীন এক নাবালিকাকে যৌন হেনস্থার অভিযোগ উঠে এলো। এই অভিযোগের ফলস্বরূপ মিকা সিংয়ের হতে পারে ৬ মাস পর্যন্ত কারাদণ্ড। দুবাইয়ের কোটে মামলা চলাকালীন “সেলিব্রিটি কোটাতেও” ছাড় মিলল না তার।আমরা অনেকেই জেনে থাকি, সৌদি আরবের আইন কত কড়া সৌদি আরবে কোনো মহিলার না বলে ছবি তোলাও এক দণ্ডনীয় অপরাধ, শুধু তাই নয় রাস্তার মধ্যে হাতে হাত ধরে হাঁটা, চুমু খাওয়া, সৌদি আরবে এসব নিষিদ্ধ। আপনি জানলে অবাক হবেন,এমন কি সৌদি আরবে আপনি নিজের গাড়ি নিজেই ধুতে পারবেন না,গাড়ি ধোয়ার জন্য আপনাকে কার ওয়াশিং সেন্টারে যেতে হয়।

যেখানে আইন এত কড়া , সেখানে ব্রাজিলের এক তরুণী মিকা সিংয়ের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার মতো এতো বড় গুরুতর অভিযোগ তুললেন।ব্রাজিলের এই তরুণী পেশায় মডেলিং করেন।ব্রাজিলের ওই ১৭ বছরের তরুনীর বক্তব্য,বলিউডে মডেলিং এর সুযোগ করে দেওয়ার জন্য তার মোবাইল ফোনে আপত্তিকর ছবি পাঠান মিকা সিং। এক সন্ধ্যায় মিউজিক শো-তে ওই মেয়েটির সাথে দেখা হয় মিকা সিংয়ের, তার পরেই মিকা সিং বলিউডে তাকে মডেলের সুযোগ করে দেওয়ার লোভ দেখান এবং সন্ধ্যায় এক অনুষ্ঠানিক শো-তে তিনি ওই তরুণীকে আপত্তি জেনেও জড়িয়ে ধরেন। শেষমেষ অনুষ্ঠান চলাকালীন ওই মেয়েটিকে যৌন হেনস্থার চেষ্টা করেন মিকা সিং ।

সেই রাতেই আনুষ্ঠানিক শেষ হওয়ার আগে আবু ধাবির পুলিশ মিকা সিং-কে ধরে পুলিশ স্টেশন নিয়ে যায়। ভারতীয় দূতাবাসের অনেক প্রচেষ্টায় মিকা সিংকে জেল থেকে রেহাই করা হয় , কিন্তু মামলাটি সৌদি আরবের কোটে ওঠে এবং জেল থেকে ছাড়া পেলও তাকে রবিবার আদালতে পেশ দিতে হবে। শুধু তাই নয় অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাকে ৬ মাসের কারাদণ্ডে দণ্ডিত করবে আদালত।

যৌন হেনস্থার অভিযোগ উঠলেও মিকা সিং তার বিরুদ্ধে বক্তব্য রেখেছেন, আমি কোনো আপত্তি জনক ছবি পাঠায়নি, হয়তো তরুনীর ছবিগুলো পছন্দ হয়নি। এছাড়াও যৌন হেনস্থায় ওঠা অভিযোগকে তিনি পুরোপুরি ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন। তবে যদি তিনি তার অজান্তে কোন নিয়ম ভঙ্গ করেছেন তার জন্য আদালতের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী এমনটাই তার মন্তব্য।