কাশ্মীর ইস্যুকে নিয়ে মেহবুবা মুফতিকে পাল্টা আক্রমণ বিজেপি সাংসদ গৌতম গম্ভীরের..

কাশ্মীর ইস্যু কে নিয়ে এবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ কে সরাসরি আক্রমণ করলেন মেহবুবা মুফতি। পিডিপির এই নেত্রী টুইটারে অমিত শাহ কে আক্রমণ করেছেন।তবে তাকে তোপ দাগতে কোন অংশে বাদ যায়নি বিজেপিও। এই দিন বিজেপি সাংসদ গৌতম গাম্ভীর তার প্রতিবাদে ওই মাইক্রোব্লগিং সাইটে মেহবুবা মুফতির বিরুদ্ধে পাল্টা তোপ দেগেছেন।

এই দিন মেহবুবা মুফতি দাবি করেন কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করতে হবে আলোচনার মাধ্যমে এবং এর জন্য সব পক্ষকে নিয়ে আলোচনায় বসতে হবে তাদের। তবে তার এই উল্লেখিত সব পক্ষের মধ্যে রয়েছে পাকিস্তানের নাম ও তা জানাতে ভোলেননি তিনি।

গতকাল অর্থাৎ সোমবার দিন তিনি এক টুইটে দাবি করেছেন এটি। তিনি অভিযোগ করেছেন কাশ্মীর সমস্যার সমাধানে আলোচনায় রাস্তার পথে হাঁটতে চাইছেন না দেশের নতুন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।তার বদলে অমিত শাহ বলপূর্বক নাকি কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করতে চাইছেন। এদিন তিনি দাবি করেন যা কাশ্মীরে বাসীদের পক্ষে মঙ্গল জনক হবে না।

পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির নেত্রীর বক্তব্য, কাশ্মীরের সমস্যা একটি রাজনৈতিক। তাই রাজনীতির পথেই এর সমাধান সম্ভব। সেই কারণে ১৯৪৭ সাল থেকে প্রতিটি কেন্দ্রীয় সরকার কাশ্মীরের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেছে।

মেহবুবা মুফতির এরকম করি তারপর তাকে পাল্টা আক্রমণ করতে বাদ দিলে না বিজেপির নতুন সংসদ গৌতম গাম্ভীর। এই দিন বিজেপি সাংসদ গৌতম গাম্ভীর অমিত শাহ এর পক্ষ নিয়ে কাশ্মীর সমস্যা সমাধানের জন্য প্রশ্ন করেছেন। তার মতে আলোচনার মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান হওয়া উচিত। আর সেই কারণে ভারতের সহনশীলতা সবাই দেখেছে। কিন্তু কাশ্মীরের মানুষের জন্য যদি কোন প্রকার জোর করতে হলে তাই করা উচিত।

তবে এটা প্রথমবার নয় যেখানে মেহবুবার সাথে গম্ভীরের মতবিরোধ হয়েছে। এর আগেও মেহবুবা সঙ্গে গম্ভীরের মতবিরোধ রয়েছে। এর আগেরবার তাদের মধ্যে মতবিরোধ হয়েছিল গত এপ্রিলে।আর সেই সময় দুজনে আর্টিকেল 370 কে নিয়ে টুইটারে দ্বন্দ্ব করছিলেন। তবে আপনাদের বলে রাখি, গৌতম গাম্ভীর রাজনীতিতে আসা অনেক আগে থেকেই কাশ্মীর ইস্যুকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে সরব আছেন।