আগামী প্রধানমন্ত্রী হোক মমতাই! টুইটারে ট্রেন্ডিং #BengaliPrimeMinister

আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে কেন্দ্র করে রাজ্য এবং কেন্দ্রের সংঘাতের সাক্ষী হয়ে রইল আমাদের এই পশ্চিমবঙ্গ।গতকাল সোমবার আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর কর্মজীবনে ইস্তফা দেন। কৌশল করে কেন্দ্রের নির্দেশকে এড়িয়ে যাওয়ার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর উপদেষ্টা হিসেবে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়োগ করেন। এই ঘটনাটি এখন মিডিয়ার জগতে তুমুল ভাইরাল। টুইটারে ট্রেনডিংয়ে পৌঁছে গেছে #BengaliPrimeMinister।

 

‘বাঙালি প্রধানমন্ত্রী মমতা’ এই হ্যাশট্যাগ দিয়ে টুইটারে ট্যুইট করে মনোজ তিওয়ারি লেখেন ‘পশ্চিমবঙ্গ আজ যা ভাবে, ভারত কাল তা ভাবে। সোনার মডেল পুরোপুরি ব্যর্থ। ওদের জন্য দেশ ভুগছে। কিন্তু, দিদি উন্নয়নের মডেলে আমাদের এগিয়ে নিয়ে চলেছেন। এইভাবে আগামী দিনগুলো আমরা চাই’।

আগামী দিনে প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসবেন বাংলার দিদি না নরেন্দ্র মোদি। এই নিয়ে এখন শুরু হয়েছে ভোট পর্ব। এই প্রসঙ্গে আবার একজন ব্যক্তি যিনি লিখেছেন ‘ভারত বাংলার মেয়েকে চায়’। আরেক নেটিজেন লিখেছেন,। অপর একজন লিখেছেন ‘২০২৪ সালে নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের মুখ একমাত্র মমতাই’। ভারতবর্ষে বিজেপি বিরোধী হিসেবে সকলের কাছে পরিচিত হয়ে উঠেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ২১ এর বিধানসভা ভোটে বিপুল ভোটে জয়লাভ করার পর বিজেপি বিরোধী দলগুলি খুবই উচ্ছ্বসিত হয়ে উঠেছে।

 

মমতার এই জয়ের জন্য শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছিলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল, সমাজবাদী পার্টির নেতা অখিলেশ যাদব, শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউত, মেহবুবা মুফতিরা। এবার দিল্লির রাজনীতি নিয়ে মমতা ব্যানার্জি কী ভাবছেন সেটি জানার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে সমগ্র ভারতবাসী। আগামী ৫ তারিখে সাংগঠনিক বৈঠকে জাতীয় রাজনীতি নিয়ে মমতা কি বলবেন, তা নিয়ে বেশ জল্পনার সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু তৃণমূল অন্দর থেকে খবর পাওয়া গেছে মমতা ব্যানার্জি দিল্লির রাজনীতি নিয়ে নয় তিনি চেষ্টা করছেন কীভাবে নিজের সরকারকে আরো শক্ত করে তোলা যায় সে বিষয়ে।