ভাগ্নের বিয়েতে ২ বস্তা ভর্তি টাকা নিয়ে হাজির ৩ মামা, ঘন্টাখানেক ধরে গুনা হলো সেই টাকা! ভাইরাল ভিডিও

শুরু হয়ে গেছে বিয়ের সিজন। কনে পক্ষ থেকে পাত্রপক্ষ সকলেই নিজেদের সামর্থ মত অর্থ খরচ করেন এই বিবাহ অনুষ্ঠানে। প্রায় চার দিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানে আনন্দ-উৎসবে মেতে ওঠেন সকলে। আমরা সোশ্যাল মিডিয়ায় আমার অনেক ভিডিও দেখতে পাই যেখানে বেশ অন্যরকম বিয়ের কথা জানতে পারা যায়। কখনো দেখতে পাওয়া যায় কনকাঞ্জলি দিতে গিয়ে হাসতে হাসতে শ্বশুর বাড়ি যাচ্ছে নববধূ, কখনো আবার দেখতে পাওয়া যায় আমন্ত্রণকার্ডে উল্লেখ করা হয়েছে অর্থের কথা। প্রি ওয়েডিং থেকেই বিবাহ বাসর, সর্বত্র নতুনত্বের ছোঁয়া লাগাতে চান সকলে।

তবে আজ কথা বলব রাজস্থানের নাগৌর জেলার দেশয়াল গ্রামের একটি প্রথার কথা। প্রথা অনুযায়ী, এই গ্রামের বিবাহিত প্রত্যেক নবদম্পতিকে দেওয়া হয় চালের বস্তা, একে বলা হয় মাইরা। এই প্রথা বহুদিন ধরে চলে আসছে এই গ্রামে। তবে সম্প্রতি এক কৃষক পরিবারের তিন ভাই তাদের ভাগ্নের বিয়েতে দুই বস্তা নোট দিয়েছেন। খবরটি জানাজানি হতে না হতেই ভাইরাল হয়ে যায় এবং এই দৃশ্য দেখতে উপস্থিত হওয়া আশেপাশের গ্রামের বহু মানুষ।

গত আড়াই বছর ধরে ভাগ্নের বিয়ের জন্য তার মামারা অর্থ সঞ্চয় করে আসছিলেন। অবশেষে দুটি বস্তার মধ্যে দশ টাকার নোট ভর্তি করে দেওয়া হয় ভাগ্নের বিয়েতে। গ্রামের সিপু দেবীর ছেলে হিমতারামের বিয়ে উপলক্ষে তার তিন মামা নিয়ে এসেছিলেন এই নোট ভর্তি দুটি বস্তা। মাইরা নামক প্রথাকে অন্য একটি পর্যায়ে নিয়ে গেছেন রামনিবাস জাট, কানারাম জাট, শয়তানরাম জাট।

দুই বস্তা নোট গুনতে সময় লেগেছিল প্রায় ৩ ঘন্টা। উপস্থিত সদস্যদের মধ্যে ৮ জন লোক গণনা শুরু করেছিলেন এবং ৩ ঘণ্টা পর জানতে পারা যায় ২ বস্তায় রয়েছে মোট সাড়ে ছয় লক্ষ টাকা। কত পরিমান টাকা রয়েছে তা দেখার জন্য প্রায় ৩ ঘন্টা সেখানে অপেক্ষা করেছিলেন বিয়েতে উপস্থিত প্রত্যেক লোক।