২১ শে জুলাই এর মঞ্চ থেকে ক্ষমতায় এলে সকলকে বিনামূল্যে রেশন ও স্বাস্থ্য পরিষেবার প্রতিশ্রুতি মমতার

বাংলায় ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। এবার তাদের পরবর্তী লক্ষ্য ২০২৪ এর লোকসভা নির্বাচন। আজ একুশে জুলাই এর মঞ্চ থেকেই বিজেপির বিরুদ্ধে সলতে পাকাতে শুরু করে দিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জি। করোনা মহামারীতে ভার্চুয়ালি শহীদ সভার আয়োজন করেছিল তৃণমূল। এবার শুধু বাংলাতে নয় ত্রিপুরা, মহারাষ্ট্র, তেলেঙ্গানা,দিল্লি মত রাজ্যে মমতার একুশে জুলাই এর বক্তিতা সম্প্রচার করা হয়েছে জায়েন্ট স্ক্রিন এ।

তৃণমূলের দিল্লিতে কনস্টিটিউশন হলে হাজির হয়েছিলেন কংগ্রেসের বর্ষিয়ান নেতা এবং দেশের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরম ,দ্বিগবিজয় সিং এনএসপি প্রধান শারদ পাওয়ার ও নেত্রী সুপ্রিয়া সুলে, সমাজবাদী পার্টির নেত্রী জয়া বচ্চন, অন্যদিকে উপস্থিত ছিলেন রামগোপাল যাদব, টিআরএস পার্টির পক্ষ থেকে কেশব রাও, আম আদমি পার্টির পক্ষ থেকে সঞ্জয় সিং, আর জেড এর পক্ষ মনোজ ঝা, শিবসেনার পক্ষ থেকে প্রিয়াঙ্কা চতুর্বেদী, অকালি দলের পক্ষ থেকে বলবিন্দর সিং ভান্ডারী।

আজ এক প্রকার বিরোধী ফন্টের সকল পার্টির নেতাদের একুশে জুলাই এর মঞ্চে আহ্বান জানিয়েছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার ভাষণের প্রথম থেকেই গেরুয়া শিবিরের প্রতি আক্রমণ ও অল ইন্ডিয়া ফ্রন্ট করার পক্ষে সওয়াল ছিল অন্যতম। তিনি বলেন ‘সব রাজ্য কে বলছি নেতাদের বোঝান সবাই মিলে ফন্ট বানান’তার কথার ভঙ্গিমাতেই স্পষ্ট হয়ে গেছিল ২০১৯ এ যা সম্ভব হয়নি ২০২৪ এর লোকসভা নির্বাচনে সেই অসম্ভব কাজ সম্ভব করতে মরিয়া তৃণমূল কংগ্রেস।

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির এই পেট্রোল, ডিজেল, গ্যাসের দাম বেড়ে যাওয়া বা টিকা কেন সাধারণের জন্য নেই এর প্রতিবাদে করতে রাস্তায় নামার অনুরোধ জানিয়েছেন সকল জনগণকে। এছাড়াও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রতিশ্রুতি দেন ‘ফ্রন্ট ক্ষমতায় এলে সকলকে বিনামূল্যে রেশন ও চিকিৎসা দেওয়া হবে’। রাজনৈতিক মহলের অবশ্য দাবি অতীতে চিকিৎসা নিয়ে ব্যাপক অস্বস্তিতে কেন্দ্রীয় সরকার। বিজেপি শাসিত রাজ্য বাদে প্রায় সকল রাজ্যই টাকার অভাব নিয়ে সরব। যদি আগামী দিনে ফ্রন্ট আদেও লোকসভা নির্বাচনে কোনো কার্যকারী ভূমিকা নিতে পারে কিনা সেটা সময়ই বলে দেবে।