২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করতে চাইছে তৃণমূল, বড়সড় বদল আনতে চলেছেন মমতা ব্যানার্জী

বিধানসভা ভোটের ইশতেহারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি জানিয়েছিলেন যে আবারো যদি তার দল ক্ষমতায় আসে তবে তাঁরা চালু করবেন ‘এক ব্যক্তি এক পদ’ নীতি। যেমন কথা তেমন কাজ রাজ্যের সিংহাসনে বসেই মুখ্যমন্ত্রী তার দলেই যে সমস্ত নেতারা একাধিক পদে অধিষ্ঠিত আছেন তাদেরকে একটি পদে বহাল রাখা হয়। তবে সম্পূর্ণ এই প্রক্রিয়াটা শেষ হতে বেশ কিছু সময় লাগবে বলে মনে করছে দলের শীর্ষ নেতৃত্বরা।

২০২১ স্বাধীন বিধানসভা ভোট গেরুয়া শিবির কে পরাজিত করে ২০০ টিরও বেশি আসন নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতায় আসে তৃণমূল শিবির। এসে শুরু করেন ‘এক ব্যক্তি এক পদ’ নীতিকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার। আস্তে আস্তে এই নীতি কার্যকর হচ্ছে। লোকসভা ও রাজ্যসভায় শীঘ্রই ‘এক ব্যক্তি এক পদ’ নীতি চালু করতে চলেছে তৃণমূল। আগামী ১৯ শে জুলাই থেকে সংসদের বর্ষাকালীন অধিবেশন শুরু হবে। আর তার আগে তৃণমূল এই বদলের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করতে পারে বলে খবর পাওয়া গেছে।

এতদিন থেকে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় একাধারে লোকসভার তৃণমূলের দলনেতা এবং খাদ্য, গণবণ্টন ও উপভোক্তা বিষয়ক সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান পদে ছিলেন। ‘এক ব্যক্তি এক পদ’ নীতি চালু করতে হলে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় কে একটি আসন ছাড়তে হয়। আর সেই আসনে অভিষিক্ত হতে পারেন প্রবীণ তৃণমূল নেতা সৌগত রায়।

মুখ্য সচেতক পদ থেকে পদোন্নতি হয়ে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় উপনেতার পদে বসানো হতে পারে বলে খবর পাওয়া গেছে। আর ওই পদে অভিষিক্ত হবেন বারাসাতের সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার। এর পাশাপাশি লোকসভা এবং রাজ্যসভার বিভিন্ন পদে পরিবর্তন আনতে পারে ঘাসফুল শিবির।