নতুন খবরবিশেষরাজ্যলাইফ স্টাইল

পশ্চিমবঙ্গে রেশন তোলার নিয়ম নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের

করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে ভারত সরকার লকডাউন ঘোষণা করে। কিন্তু লকডাউন এর ফলে বহু গরিব মানুষের দুবেলা-দুমুঠো খাবার জোটানো মুশকিল হয়ে যাচ্ছিল। কারণ তারা অধিকাংশই দিন আনা দিন খাওয়া মানুষ। তাই কেন্দ্র সরকার ও রাজ্য সরকার তাদের কথা ভেবে বিনা মূল্যে চাল-গম দেওয়ার কথা ঘোষণা করে। যাতে লকডাউন এর সময় গরীব মানুষেরা অভুক্ত অবস্থায় না থাকে।প্রথমে পশ্চিমবঙ্গ সরকার তরফ থেকে ঘোষণা করা হয় গরীব, দুস্থ প্রত্যেকটি পরিবার মাথাপিছু 5 কেজি করে চাল ও গম পাবেন।

আগে যেখানে দু টাকা কিলো দরে এই চাল কিনতে হতো সেখানে সরকার বিনা মূল্যে চাল ও গম দেওয়ার ঘোষণা করেছে। এবং এটি সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত প্রত্যেক মাসে রেশন দোকানে দেওয়া হবে।কিন্তু কেন্দ্র রাজ্য সরকারের ঘোষণা করার পরেও রেশন দুর্নীতি নিয়ে নানা জায়গায় বিক্ষোভ দেখা যায়। এমনকি বহু রেশন ডিলারের বাড়িতে হামলা করে সাধারণ মানুষ। এমন কী বিরোধী দলের নেতারা এই রেশন দুর্নীতিকে নিয়ে সরব হয়। এর পাশাপাশি রাজ্যের বহু মানুষ রয়েছেন যারা এখনো পর্যন্ত রেশন কার্ড পাননি।

তাই তারা সরকারের দেওয়া এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বলেও দাবি জানিয়েছেন বিরোধীরা। যাদের রেশন কার্ড নেই তারা যাতে রেশন পাওয়া থেকে বঞ্চিত না হয় তার জন্য সরকারের তরফ থেকে কুপন সিস্টেম চালু করা হয়। এই কুপনের মাধ্যমে বিনামূল্যে চাল পাবেন।এই সবকিছুর মাঝে আরও একটি সুখবর দেওয়া হয়েছে সরকারের তরফ থেকে। সমস্ত দরিদ্র, মধ্যবিত্ত ও দুঃস্থ পরিবারগুলো এখনো পর্যন্ত রেশন কার্ড পাওয়ার জন্য আবেদন করেননি তাদেরকেও রেশন কার্ড দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে সরকারের তরফ থেকে।

এই বৃহস্পতিবারে ক্যাবিনেট কমিটির বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে খবর সূত্রে জানা গিয়েছে। এই বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে, ডিজিটাল রেশন কার্ড নেই বা এখনো পর্যন্ত আবেদন করেননি এমন পরিবারের জন্য বিনামূল্যে রেশন দেওয়া হবে। এছাড়াও এ বৈঠকে আরো একটি বিষয় ঠিক হয়েছে যেটি হল, এতদিন যারা একবারও রেশন তোলেননি তারাও রেশন তুলতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে এই সমস্ত গ্রাহকদের সরকারের কাছে আবেদন করতে হবে। কিন্তু এই আবেদন কীভাবে করতে হবে সেই সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি সরকারের তরফ থেকে।

তবে এ সম্পর্কে খুব তাড়াতাড়ি জানিয়ে দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে। সবমিলিয়ে রাজ্য সরকারের এমন সিদ্ধান্ত যদি কার্যকর হয় তাহলে বহু মধ্যবিত্ত পরিবার উপকৃত হবে। কারণ এই লকডাউন এর সময় খুব খারাপ পরিস্থিতিতে রয়েছে মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো।

Related Articles

Back to top button