বিরাট সুখবর বেরিয়ে এল মমতা বন্দোপাধ্যায়ের তরফ থেকে, এবার দিঘাতে বিদেশি শিল্পপতিরা করতে চলেছেন বড় বিনিয়োগ…

দীঘায় পর্যটকদের জন্য খুশির খবর নিয়ে এল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দীঘায় যে শিল্প সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল তাতে রাজ্যে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এনার আহ্বানে অনেক শিল্পপতিরা সাড়া দিয়েছেন। খবর পাওয়া গেছে দীঘায় 4 এবং 5 তারা হোটেল হবে। এর থেকে একটা জিনিসে বোঝা যায় যে এবার দীঘায় আরও বেশি বিদেশি পর্যটক আসবে।

এর আগে অর্থবছরের শুরুতে দীঘায় গিয়ে আন্তর্জাতিক মানের কনভেনশন সেন্টারের উদ্বোধন করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর সঙ্গে আরও কয়েকটি পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। তার লক্ষ্য একটাই যে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে দিখাকে আন্তর্জাতিক স্তরে পৌঁছানোর। এই কাজ করার জন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলেন অন্যান্য শিল্পপতিরাও।

দিঘাতে পাঁচতারা হোটেল তৈরির ঘোষণা করলেন শিল্পপতি হর্ষ নেওটিয়া। এবং হায়াতের মত আন্তর্জাতিক সংস্থাও দিঘাতে চার তারা হোটেল তৈরি করবার কথা বলেছে। খবর সূত্রে জানা গিয়েছে যে, ইতিমধ্যেই হোটেল তৈরীর জন্য শিল্পপতিরা নিলামের মাধ্যমে জমি পেয়ে গেছেন। ফলে দিঘাতে পাঁচতারা হোটেল গড়ে ওঠা আর বেশি দেরি নয় বললেই চলে। বুধবার দিঘাতে শিল্প সম্মেলনের সূচনা করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শিল্প সম্মেলন উদ্বোধন করার পরেই মুখ্যমন্ত্রী আরো একবার এরাজ্যে বিনিয়োগ করার জন্য আহ্বান জানান সমস্ত শিল্পপতি দের।

এরই সাথে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,” বর্তমান দিনে বিনিয়োগের সেরা জায়গা হল পশ্চিমবঙ্গ। শুধুমাত্র এদেশের শিল্পপতিরা নয় বিদেশি শিল্পপতিরা বাংলায় বিনিয়োগ করার জন্য আগ্রহী হয়ে আছেন। শিল্প করার জন্য এখন উপযুক্ত পশ্চিমবঙ্গ। এবং এদিন বক্তৃতায় তিনি রাজ্যের বেকারত্বের হার 40% কমেছে সেই কথাও উল্লেখ করতে ভোলেননি। এবং এর সঙ্গে সঙ্গে যে দারিদ্রতা ও কমেছে সেটিও তিনি বলেন। দারিদ্র্যতা কমার একমাত্র কারণ হিসেবে তিনি বলেন, রাজ্য সরকারের একাধিক প্রকল্প। রাজ্য সরকারের একাধিক প্রকল্পের সুবিধা পাওয়ার জন্যই রাজ্যের দারিদ্রতার 6 শতাংশ কমেছে বলে দাবি করেন মুখ্যমন্ত্রী।

শিল্পপতিরা যাতে রাজ্যে বিনিয়োগ করতে আরও আগ্রহী হন তার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরো বলেন যে, ‘ রাজ্যের যে নিজস্ব ল্যান্ড ব্যাঙ্ক রয়েছে তার থেকে শিল্প করার জন্য জমি দেবে রাজ্য সরকার।” এদিন আরো একবার বাংলার সম্প্রীতির পরিবেশ নিয়ে বক্তব্য দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ নিয়ে তিনি বলেন,” বছরের পর বছর ধরে বাংলায় সম্প্রীতির পরিবেশ বহুগুণে সুষ্ঠু রয়েছে আগের তুলনায়। গটা বাংলা জুড়ে বিভিন্ন বর্ণ বিভিন্ন ধর্মের মানুষ বসবাস করছে। কোন শিল্পপতি বাংলায় শিল্প গড়তে চাইলে সাম্প্রদায়িক এই মেলবন্ধনের জন্য লাভ পাবেন শিল্পপতিরা।”

আরও পড়ুন :