গাড়ি আটকে টাকা তুলতে পারবে না পুলিশ, ডিজিকে নির্দেশ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের..

এবার এক চাঞ্চল্যকর অভিযোগ তুলে ধরলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তিনি দাবি করেন রাজ্যের পুলিশরা “সেভ ড্রাইভ সেভ লাইফ” নামে টাকা তুলছে। আজ বুধবার দিন দীঘার প্রশাসনিক বৈঠক এ কথা তুলে ধরলেন তিনি, বললেন এটা এক সচেতনামূলক প্রচার আর এর জন্য গরিব মানুষগুলোর কাছ থেকে টাকা নিতে কে বলেছে? আপনাদের বলে রাখি 2016 সালে সেভ ড্রাইভ সেভ লাইফ পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু আটকাতে এই প্রকল্পের উদ্বোধন করেছিলেন খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর তারপর প্রশাসনের তরফ থেকে এখন দাবি করা হয়েছে এই অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে রাস্তায় পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হওয়ার সংখ্যাও অনেকটাই কমেছে। তবে এখন এই অভিযানের নাম করে গাড়ি ধরে অনেক গরীব মানুষের কাছ থেকে টাকা তোলা হচ্ছে বলে অনেকদিন ধরে অভিযোগ উঠে আসছিল। যার দরুণ দিন দিন সাধারণ মানুষের ক্ষোভ পুলিশের উপর বেড়ে চলেছে। তবে এদিন দিঘার প্রশাসনিক বৈঠক থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ কথা তুলে ধরেন।
এই দিন তিনি বলেন এসব কী হচ্ছে থানার অফিসারা খালী বলছে গাড়ি ধরো আর টাকা নাও সিভিক ভলেন্টিয়ার দিয়ে তারা টাকা তোলা বাজি করাছে। এদিন তিনি নির্দেশ দেন এই সব বন্ধ করতে হবে আর জেলার পুলিশ সুপারকে বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য নির্দেশও দেন । এই দিন মুখ্যমন্ত্রী কলকাতা পুলিশ কমিশনার কে এই বিষয়টি দেখতে বলেছেন। তবে এখানেই শেষ নয় এই দিন তিনি আরো বলেন যদি কেউ ন্যাশনাল হাইওয়েতে বাঁদরামি করে থাকে তাহলে তাকে কেস দিন অন্যায় করলে কোন রেহায় নয়। তবে অনেক নির্দোষ মানুষের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হচ্ছে যেগুলো খুব শীঘ্রই বন্ধ করতে হবে অনেক গরীব মানুষ আছে যাদের পকেটে এ 500 টাকা থাকে এবং তাদের কাছ থেকে 200 টাকা নিয়ে নেয়া হচ্ছে এভাবে কিভাবে চলবে তাদের সংসার।

শুধু তাই না অলিতে গলিতে ঢুকে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করা হচ্ছে এই জন্য। তিনি আরো বলেন সিভিক ভলেন্টিয়ারা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নয় ওদের দিয়ে কেন টাকা নেওয়া হচ্ছে আগে ওদের ট্রেনিং দিন আমরা একটা পার্মানেন্ট সলিউশন চাইলে এই জন্য মানবিক হতে হবে। এই বিষয়ে তিনি পুলিশ ডিজি সুরজিৎ কর পুরকায়স্থ বিষয়টি দেখার অনুরোধ করেন এবং রাস্তায় দুর্ঘটনা রোধে সিসিটিভি পৌঁছানোর পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।