সেনার জন্য রক্ষাকবচ তৈরি করল মাহিন্দ্রা, লুকিয়ে রাখা বিস্ফোটকেও খুঁজে বের করতে সক্ষম এই বাহন

এবার ডিফেন্স সেক্টরে পা রাখার পরই মাহিন্দ্রা ও মাহিন্দ্রার তরফ থেকে একটি অত্যাধুনিক ও উচ্চ প্রযুক্তিতে তৈরি হাইটেক আর্মার্ড যান তৈরি করা হয়েছে যা ভারতের সামরিক, আধাসামরিক বাহিনীর প্রয়োজন মেটাবে। এর বিশেষত্ব হ’ল এটি মাওবাদী বা অন্যান্য ধরণের সন্ত্রাসবাদীদের দ্বারা নির্ধারিত স্থলের মাইন থেকে সেনাদের রক্ষা করবে। এই অত্যাধুনিক ও উচ্চ প্রযুক্তিতে তৈরি যানটির বিশেষত্ব হল এটি ভারতীয় জওয়ানদের মাওবাদী এবং অন্যান্য ধরনের সন্ত্রাসবাদীদের দ্বারা নির্মাণ করা একাধিক ল্যান্ড মাইনের হাত থেকে সেনাবাহিনীকে রক্ষা করবে।

সংস্থাটি জানিয়েছে, শিগগিরই এটি জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা অভিযানে ব্যবহৃত হবে, সংস্থার মতে, শিগগিরই এটি জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে ব্যবহৃত হবে। উদ্বোধনের কথা বলতে গিয়ে মাহিন্দ্রা গ্রুপের চেয়ারম্যান আনন্দ মাহিন্দ্র একটি টুইট বার্তায় এটিকে ‘মীন মেশিন’ বা খুব শক্তিশালী বাহন বলে বর্ণনা করেছেন। যেহেতু এই যানটি ল্যান্ড মাইন রোধ করতে সক্ষম সেহেতু এটি শত্রুদের ঘাত লাগিয়ে বসে থাকা স্থল মাইন থেকে পুরোপুরি নিরাপদ। এটিকে মাহিন্দ্রা ডিফেন্স গ্ৰুপের তরফ থেকে ডিজাইন করা এবং তৈরি করা হয়েছে যা ভবিষ্যতে রফতানিও হবে।

এ বিষয়ে এসপি শুক্লা বলেছিলেন যে শিগগিরই এটি জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী অভিযানে মোতায়েন করা হবে। এটি ট্রাকের মতো ভারী একটি সাঁজোয়া যান। শুধু তাই নয়, এর মধ্যে এমন অনেকগুলি চেকিং অস্ত্র রয়েছে যা রাস্তার পাশে পড়ে থাকা বিস্ফোরক ডিভাইস (আইইডি) সরিয়ে বা তুলতে পারে। এই যানটি মাওবাদী বা অন্যান্য সন্ত্রাসবাদীদের দ্বারা লাগানো স্থল মাইন বিস্ফোরকগুলি থেকে সুরক্ষা বাহিনীকে রক্ষা করবে। মাহিন্দ্রা প্রতিরক্ষা নির্বাহী এসপি শুক্লা এই গাড়িটির একটি ছবি টুইট করেছেন, যা আনন্দ মাহিন্দ্রাও রিটুইট করেছেন।

আনন্দ মাহিন্দ্রা বলেছিলেন, ‘এটি কোনও মীন মেশিনের মতো দেখাচ্ছে। অন্যদিকে প্রকাশ শুক্লা বলেছেন এটি মহিন্দ্রা প্রতিরক্ষা সম্পর্কিত একটি বাস্তব ধারণা ধারণ করে, যা শান্তিবাহিনীকে সুরক্ষিত রাখার বিষয়ে। ”তিনি রসিকতা করে বলেছিলেন যে আধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি এই যানটি মুম্বাইয়ের ট্র্যাফিকের জন্যও উপযুক্ত, তবে সেটা আলাদা কথা যে সাধারণ রাস্তায় চালানোর জন্য এই গাড়িটি অবৈধ। বলে রাখি মাহিন্দ্রা ডিফেন্স মহিন্দ্রা ও মাহিন্দ্রা গ্রুপের একটি সহায়ক সংস্থা।এটি প্রায় 70 বছর ধরে গ্রাহকদের সামরিক এবং প্যারা সামরিক একাধিক জিনিস সরবরাহ করে আসছে।

তাছাড়া ভারতীয় সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীও এর সেবা নিয়েছে। তাছাড়া সরকার প্রতিরক্ষা হিসাবে ভারতীয় সংস্থাগুলি প্রচার করছে এবং এটি লক্ষ্য করা হয়েছে যে ভারতীয় প্রতিরক্ষা চাহিদার কমপক্ষে 70 শতাংশ প্রয়োজন কেবল দেশীয় সংস্থাগুলি থেকে সরবরাহ করা উচিত। সম্প্রতি, সরকার প্রতিরক্ষা খাতে 100 ভাগই এফডিআই অনুমোদন করেছে।