নতুন খবরবিশেষ

গোটা বিশ্বজুড়ে রয়েছে হিন্দু সংস্কৃতির প্রভাব! বিশ্বের সবথেকে বড়ো মুসলিম দেশের টাকায় থাকে ভগবান গণেশের ছবি

সম্প্রতি দিন কয়েক আগে বিজেপি সাংসদ সুব্রামানিয়াম স্বামী একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছিলেন। তার ওই বিবৃতি প্রকাশ পাওয়ার পর থেকেই চর্চার বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। ওই বিবৃতিতে তিনি জানিয়েছিলেন যে, ভারতীয় কারেন্সির উপর দেবী লক্ষ্মীর ছবি যাতে ছাপানো হয়। বিজেপি সাংসদ সুব্রামানিয়াম স্বামীকে যখন ইন্দোনেশিয়ার মুদ্রাতে গণেশের মূর্তি ছাপানো নিয়ে প্রশ্ন করেন তখন এর উত্তরে তিনি জানান, ভারতীয় নোটে এবং মুদ্রায় ধনের দেবী লক্ষ্মীর ছবি ছাপানো হলে ভারতীয় কারেন্সিতে উন্নতি ঘটতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

 

হিন্দু ধর্মে আমরা মা লক্ষ্মী কে ধনের দেবী বলে মেনে আসছি তাই তিনি এই পরামর্শ দিয়েছেন। এবং হিন্দু ধর্মের প্রত্যেকটি বাড়িতেই আমরা মা লক্ষীকে আহ্বান জানাই যাতে তিনি সবাইকে ধনসম্পত্তি দেন। এবং তিনি এও জানিয়েছেন যে এর জন্য কারোর খারাপ লাগার কোন দরকার নেই। আপনাদের জানিয়ে দিই যে, কয়েক বছর আগে আগে ইন্দোনেশিয়ার অর্থনীতিতে অবনতি ঘটে ছিল। তখন সেখানকার সরকার অর্থনীতিবিদদের কাছে পরামর্শ নেন এ কী করে তা সমাধান করা যায়।

তখন কিছু অর্থনীতিবিদ পরামর্শদেন যে, 20 হাজার টাকার নোটে যেন ভগবান গনেশের ছবি ছাপানো হয়। এই সিদ্ধান্তের পর এই ইন্দোনেশিয়ার অর্থনীতি আবার আগের জায়গায় ফিরে আসে। এরপর কিছুদিন পরে 1998 সালে তা সরিয়ে দেওয়া হয়। এই দেশে সাধারণ জীবনযাত্রা থেকে শুরু করে কারেন্সি পর্যন্ত কিছু না কিছু বৈচিত্র আমরা দেখতেই পাই। রামায়ণের মঞ্চায়ন এদেশের সংস্কৃতির জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। একটি মুসলিম দেশে রামায়ণ এবং মহাভারতের অস্তিত্ব আশ্চর্যজনক ব্যাপার। একথা সবাই স্বীকার করবেন। কিন্তু ইন্দোনেশিয়া হিন্দু ধর্মের সাথে সম্পর্কিত সংস্কৃতিকে খুবই পছন্দ করে বা হিন্দু ধর্মের সংস্কৃতি নিয়ে চলতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। তাই হয়তো সেই সময় তাদের কারেন্সিতে গনেশের ছবি ছাপিয়ে ছিলেন।এছাড়াও এখনো পর্যন্ত ইন্দোনেশিয়া জনগণ ভগবান শ্রী রামকে নিজেদের পূর্বপুরুষ বলে মানেন।

Related Articles

Back to top button