ঘর-জুড়ে টিকটিকির উপদ্রব! এখন এই ঘরোয়া পদ্ধতিতে দূর করুন ঘরের সমস্ত টিকটিকি

নতুন বাড়ি হোক কিংবা পুরনো বাড়ির দেওয়ালে কিংবা টিউবলাইট এর পিছনে একটা টিকটিকি না থাকলে যেন বাড়িটা বাড়ি মনে হয় না । কিন্তু আমরা সবাই জানি টিকটিকি একটি ক্ষতিকর প্রাণী। কোনভাবে গায়ের ওপরে টিকটিকি পড়লে তা থেকে নানান রকম সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকে। এছাড়া টিকটিকির চামড়া, মলমূত্র থেকে নানান রকমের বিষক্রিয়া ছড়ায়।  বাজার চলতি কিছু স্প্রে দিয়ে সাময়িকভাবে এদের দমন করা গেলেও টিকটিকির উপদ্রব চিরতরে শেষ করা খুবই শক্ত।  তবে কিছু ঘরোয়া উপায় রয়েছে যার মাধ্যমে টিকটিকির উপদ্রব কম করা যেতে পারে।

এ ক্ষেত্রে খুবই কার্যকরী উপাদান হলো তামাক।  কিছুটা তামাক গুঁড়ো করে একটা ঘন পেস্ট তৈরি করুন।  তারপর তা থেকে গোল গোল বলের আকারে করে টুথপিক এর ওপরে গেঁথে দিন।  যেখানে টিকটিকি বেশি যাতায়াত করে সেখানে রেখে দিলেই উপদ্রব কমে।

এছাড়া টিকটিকি যাতায়াতের জায়গায় যদি জামাকাপড়ে দেওয়ার ন্যাপথলিন রেখে দেওয়া যায় তাহলে ন্যাপথলিনের উগ্র গন্ধ সহ্য করতে না পেরে আপনার বাড়ি থেকে পালাবে টিকটিকি।  এবং আপনার বাড়ি সুরক্ষিত থাকবে।

রসুনের ঝাঁঝালো গন্ধ টিকটিকি একেবারেই পছন্দ করে না।  তাই জানালা বা ঘরের দরজার কোনে রসুনের কোয়া ফেলে রাখতে পারেন।  পেঁয়াজে থাকা সালফার টিকটিকির অস্বস্তির কারণ।  তাই খানিকটা পেঁয়াজ কেটে ছড়িয়ে রাখতে পারেন ভেন্টিলেটরের মধ্যে।  সাধারণত ভেন্টিলেটর দিয়ে টিকটিকি যাওয়া-আসা করে।

একটা বোতলে জল নিয়ে তাতে কয়েক চামচ গোলমরিচ গুঁড়ো আর শুকনো লঙ্কার গুঁড়ো একসাথে মিশিয়ে যেখানে টিকটিকি দেখতে পাওয়া যায় সেইখানে স্প্রে করে দিন।  তবে এটা সাবধানে করবেন কোন ভাবে সেই স্প্রে যেন আপনার চোখেমুখে ছিটকে না আসে।

জানলা দরজার কর্নারে ডিমের খোসা রেখে দিতে পারেন।  এটি টিকটিকির ইন্দ্রিয় দুর্বল করে দেয় ফলে সেই ঘরে আসতে চায় না।  তবে মাঝেমধ্যে বদল করতে হবে খোসা৷

খিদের কী লকডাউন হয়! দুর্দিনে ফুচকার হোমডেলিভারি দিয়ে সংসার চালাচ্ছেন ‘গ্র‍্যাজুয়েট’ বয় রাজেশ

সাজানোর জন্য অনেকে ঘরে ময়ূরের পালক রাখেন এটি টিকটিকি তাড়ানোর জন্য খুবই কাজে আসে।  ফুলদানিতে ময়ূরের পালক দিয়ে সাজিয়ে রাখুন৷ তাহলে টিকটিকি আর ঘরে আসবে না।

টিকটিকি সরীসৃপ প্রাণী তাই ঠান্ডা জলের ছিটা দিলে টিকটিকি স্নায়ু দুর্বল হয়ে যায়।  আলমারি টেবিলের সাধারণত টিকটিকি লুকিয়ে থাকে।  তাই এই সমস্ত জায়গায় ফিনাইল ট্যাবলেট দিয়ে রাখতে পারেন।  টিকটিকি পালিয়ে যাবে।

এছাড়া বাড়িতে জিনিসপত্র পরিষ্কার রাখুন। ঘর মোছার সময় জীবাণুনাশক তরল পদার্থ দিয়ে ঘর মুছুন।  পোকামাকড় যাতে না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখুন।কারণ বেশি পরিমাণে পোকা থাকলে  টিকটিকি তাদের খেতে আসবে।  এছাড়া বাড়িতে সম্ভব হলে বেড়াল পুষুন৷  এরা টিকটিকি মেরে খেয়ে নেয়।  দেওয়াল থেকে আসবারপত্র কিছুটা দূরে রাখুন।  নয়তো সেখানে টিকটিকি বাসা  করবে।  দেয়ালে ফাটল থাকলে তা সারিয়ে ফেলুন আর বাথরুমে ভালো করে পরিস্কার রাখুন৷