শীতের আমেজ শুরু হতে না হতেই আবারো পশ্চিমবঙ্গের একাধিক জেলাতে হালকা বৃষ্টির পূর্বাভাস, তালিকায় রয়েছে

সাপ্তাহিক ছুটি শেষ হলে কালীর পূজা শুরু। তবে বাংলার উৎসবের মরসুমে অর্থাৎ বৃষ্টি যেন সমার্থক হয়ে উঠেছে! বাংলার ঘরে ঘরে চলছে কালী পুজোর প্রস্তুতি, এদিকে বৃষ্টি আবার চোখ লাল করে তাকাচ্ছে। আজ কিছু জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। তবে বর্ষা এখন ভারত ছেড়েছে। ফলে আকাশের দিকে বৃষ্টি পড়ার কারণে এই বৃষ্টি হচ্ছে না। বলেন আবহাওয়াবিদরা। চলুন দেখে নেওয়া যাক আবহাওয়ার পূর্বাভাস।

দক্ষিণবঙ্গের আবহাওয়া সম্পর্কে জানুন:—

এদিন রাজ্যের অনেক জেলায় বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। পূর্ব মেদিনীপুর ও পশ্চিম মেদিনীপুরে বৃষ্টির পূর্বাভাস। জারগ্রাম, বাঁকুড়া, হাওড়া এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনা এলাকা তে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে। তবে আপাতত ভারি বৃষ্টির কোনো সম্ভাবনা নেই। সপ্তাহ শেষে বৃষ্টির পূর্বাভাস না থাকায় কালীপুজো শুষ্ক থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে।

উত্তরবঙ্গের আবহাওয়া সম্পর্কে জানুন :-

বাংলায় উৎসব মানেই বৃষ্টি! কিছুদিন পরেই কালীপুজো তারপর আবার আছে ভাইফোঁটা। তবে বর্ষা উত্তরবঙ্গে ব্যাহত করবে না। কিন্তু আপাতত উত্তরবঙ্গের কোনও জেলায় শনিবার পর্যন্ত ভারী বৃষ্টি হবে না বলেই সম্ভবনা। স্পষ্টতই, উত্তরবঙ্গের আবহাওয়া বেশিরভাগই শুষ্ক থাকবে। অধিকাংশ জেলায় বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। তবে উত্তরবঙ্গের কিছু জেলায় ৩১শে অক্টোবর পর্যন্ত হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতির মধ্যে দিনের তাপমাত্রায় কোনো পরিবর্তন হবে না কিন্তু রাতের তাপমাত্রার পরিবর্তন হবে। উত্তরবঙ্গের বেশিরভাগ অংশে রাতের তাপমাত্রা তীব্রভাবে কমতে পারে। এটাই জানা যাচ্ছে।

কলকাতার আবহাওয়া সম্পর্কে জানুন:-

কলকাতায় সকাল হতে না হতেই শুরু হয়েছে হালকা শরতের বৃষ্টি। প্রথম দিকে কোলকাতা কে দেখে মনে হয় যেনো সে হালকা হেমন্তের চাদরে মোড়ানো। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে অন্যান্য দিনের মতো এ দিনও তাপমাত্রা বাড়বে। শুক্রবার কলকাতার কিছু জায়গায় হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এদিন কলকাতায় দু-একটি জায়গায় বৃষ্টি হতে পারে বলে জানা গেছে। বৃহস্পতিবার, কলকাতা শহরের তাপমাত্রা ছিল ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস, স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রি কম। বৃহস্পতিবার শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৩.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের চেয়ে এক ডিগ্রি কম হতে পারে। আজ শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩২ ডিগ্রির কাছাকাছি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। শহরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৪ ডিগ্রির কাছাকাছি থাকবে।

বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ সম্পর্কে জানুন :-

ঘূর্ণিঝড়টি দক্ষিণ-পূর্বে বঙ্গোপসাগরে তৈরি হচ্ছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। নিম্নচাপটি দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরের মাঝখানে অবস্থান করছে। বাংলা এইভাবে প্রভাবিত না হলেও, ওড়িশা এই মন্দার ফলে বৃষ্টিতে ভিজে যাওয়ার সম্ভবনা আছে। এমনই ভবিষ্যদ্বাণী করেছে আইএমডি। নিম্নচাপ ধীরে ধীরে তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ উপকূলের দিকে অগ্রসর হচ্ছে বলে জানা গেছে। ফলে আরও জলীয় বাষ্প ঢুকবে বাংলায়।