কাল থেকে কনকনে ঠাণ্ডায় কাঁপতে চলেছে গোটা বাংলা! আবহাওয়া দপ্তরের তরফে বেরিয়ে এল বড়ো আপডেট

বেশ কয়েক দিনই শীতের আমেজে রোদ পোহাচ্ছিল বাঙালিরা। কিন্তু আচমকা শীতের আমেজ হয়ে গেল উধাও। রাতের তাপমাত্রা এক ধাক্কায় বেড়ে গেল ৫ ডিগ্রি। দাপুটে উত্তুরে হাওয়া কোথাও নেই। বাঙালি মধ্যবিত্তের মন খারাপ। লেপ কম্বল বের করার পরেও আবার আলমারিতে তুলে ফেলার কথা চিন্তা ভাবনা করছেন অনেকেই। কিন্তু দাড়াঁন, এখনই চিন্তাভাবনা করবেন না। কাল থেকে আরো একবার আবহাওয়ায় ব্যাপক পরিবর্তন আসতে চলেছে।

আবহাওয়া দপ্তরের খবর অনুযায়ী, কাল থেকে রাতে নেমে যাবে তাপমাত্রা। দক্ষিণবঙ্গের উপকূল অঞ্চলে এবং উত্তরবঙ্গের পার্বত্য জেলায় হালকা বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। আজ এবং কাল হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে এই সমস্ত অঞ্চলে। উত্তরবঙ্গের পার্বত্য এলাকায় তিন চার দিন বৃষ্টি থাকবে। সকালে বিক্ষিপ্ত কুয়াশা সম্ভাবনা রয়েছে। কাল থেকেই আস্তে আস্তে লক্ষ্য করা যাবে আবহাওয়ার পরিবর্তন।

আজ আংশিক মেঘলা আকাশ ছিল কলকাতায় এবং তার পার্শ্ববর্তী এলাকায়। সকালে কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৩.১ ডিগ্রী সেলসিয়াস যা স্বাভাবিকের থেকে ৫ ডিগ্রি বেশি। গতকাল বিকেলে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩২.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস যা স্বাভাবিকের থেকে ৩ ডিগ্রী বেশি। বাতাসে আপেক্ষিক আদ্রতার পরিমাণ রয়েছে ৪৩ থেকে ৯৫ শতাংশ।

বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপের ফলে পরোক্ষভাবে তৈরি হয়েছে একটি উচ্চচাপ বলয়। পুবালি হাওয়ায় ভর দিয়ে রাজ্যে প্রবেশ করেছে জলীয় বাষ্প। এই জলীয় বাষ্পের ফলে দক্ষিণবঙ্গের উপকূল অঞ্চলে এবং উত্তর-পূর্বের পার্বত্য আঞ্চলিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে আগামী দিনগুলিতে। উত্তরবঙ্গের জলপাইগুড়ি আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহারে সামান্য বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। মঙ্গলবার হালকা বৃষ্টি হতে পারে দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে। তবে বুধবার থেকে রাতের তাপমাত্রা ধীরে ধীরে কমবে বলেই জানিয়েছেন আবহাওয়া দপ্তর।

শনিবার এবং রবিবার এ কলকাতার তাপমাত্রা ১৬ ডিগ্রির কাছাকাছি পৌঁছে যেতে পারে। পশ্চিমের জেলাগুলিতে উত্তুরে হাওয়া থাকবে। বৃহস্পতিবার থেকে বাড়বে এই প্রকোপ। ফলে আগামী কাল থেকে আস্তে আস্তে দক্ষিণবঙ্গে পাকাপাকিভাবে শীত প্রবেশ করবে বলেই মনে করা হচ্ছে।