Skip to content

আপনার অজান্তে শরীরের বাসা বাঁধছে না তো মরন রোগ! কী কী লক্ষণ দেখে বুঝবেন ক্যান্সার আক্রান্ত কিনা? জানুন বিস্তারিত

মাত্র ২৪ বছর বয়সে অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলার শর্মার মৃত্যু। তার দেহ যেন গোটা রোগে আছন্ন ছিল। প্রথমদিকে অস্থিমজ্জায় ক্যান্সার, তারপরে ফুসফুসে টিউমার, মস্তিষ্কে ক্যান্সার। দীর্ঘ লড়াই করে অবশেষে ও শেষ রক্ষা হলো না। ক্যান্সারের মতো মারণ রোগ যদি একবার শরীরে বাসা বাঁধে তাহলে তা থেকে বেরোনো কঠিন। সময়মতো যদি চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া যায় এবং চিকিৎসা করা যায় তাহলে হয়তো এই রোগ থেকে বাঁচা সম্ভব।

এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার আগে বেশ কিছু ছোটখাটো লক্ষণ দেখা যায়, যেগুলোকে যদি অবজ্ঞা বা অবহেলা করা হয় তাহলে অবশেষে সেই রোগ ছড়িয়ে পড়তে পারে সারা শরীরে। চিকিৎসকদের মতে কিছু কিছু লক্ষণ আছে যেগুলো অবশ্যই সকলকে জেনে রাখা প্রয়োজন।

চিকিৎসকদের মতে শরীরের কোন অংশে বগল বা স্তনে যদি অস্বাভাবিক মাংসের বৃদ্ধি পায় তবে সেক্ষেত্র থেকে অবশ্যই সতর্ক হওয়া উচিত। এইরকম কিছু হলেই স্তন ক্যান্সার অথবা শরীরের কোন লসিকা গ্রন্থিতে ক্যান্সার হওয়ার লক্ষণ দেখা যায়।

জরায়ুতে ক্যান্সার হওয়ার প্রথম লক্ষণই হল যদি ঋতুস্রাবের সময় ছাড়া অন্যান্য সময় রক্তপাত হয়ে থাকে তবে। এ বিষয়ে থেকে অবশ্যই সতর্ক হওয়া উচিত।

একটুখানি পরিশ্রম করলেই যদি মনে হয় শরীরে অসহ্য যন্ত্রণা, পাঁজর ভেঙ্গে যাওয়ার মত অবস্থা মনে হয় তবে সে বিষয়ে থেকে অবশ্যই সতর্ক হওয়া উচিত। অনেক সময় দেখা যায় হাড়ের মধ্যে টিউমার হয় এবং সেই টিউমারই পরবর্তীকালে ক্যান্সার রোগে পরিবর্তিত হয়।

হঠাৎ করেই বা দ্রুত হারে যদি অস্বাভাবিকভাবে ওজন কমে যায় তবে কিন্তু সেটা চিন্তার বিষয়। এই বিষয়ে অবশ্যই চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ নেওয়া উচিত।

শরীরে ক্রিয়েটিনিনের মাত্রা যদি বেড়ে যায়, তবে মূত্রের সঙ্গে রক্ত বার হয় কিন্তু এই ক্রিয়েটিনিন পরীক্ষা করলে তা যদি স্বাভাবিক থাকে তবুও রক্তপাত হয় তাহলে বুঝতে হবে যে কিডনিতে ক্যান্সার রোগ আক্রমণ করেছে।

সাধারণত খাওয়ার দাওয়ার উপর নির্ভর করে মলের রং। অনেক সময় নানারকম সবজি খেলে মলের রং কালো হয় কিন্তু স্বাভাবিক খাওয়া-দাওয়া করলেও যদি এই ধরনের কালচে রঙের মল হয় সেক্ষেত্রে তে হবে যে রেনাল ক্যান্সার এবং লিভার ক্যান্সারের ক্ষেত্রে লক্ষণ গুলি দেখা যায়।

ঋতু পরিবর্তনের সাথে সাথে জ্বর হতেই পারে কিন্তু ঘনঘন যদি জ্বর হয় তাহলে কিন্তু এ বিষয় থেকে সাবধান। এর পিছনে লুকিয়ে থাকতে পারে ক্যান্সারের মতো মারণ রোগ।