আজ বলিপাড়া থেকে কোথায় হারিয়ে গেছেন একসময় “3 idiots” এর মতো হিট সিনেমা দেওয়া সেই সাইলেন্সর

ওমি বৈদ্যর কথা মনে পড়ে? পড়বে নিশ্চয়ই কারণ তিনি বলিউডের অতি পরিচিত এক মুখ, যার শৈশব এবং কৈশোর জীবনের বেশিরভাগ সময়টাই কেটেছে নিউ ইয়র্কে, সেখানকার ইউনিভার্সিটি থেকেই তিনি স্নাতক ডিগ্রি নেন এবং নিউইয়র্কের ফিল্ম স্কুলে ভর্তি হন, সেখান থেকেই তাঁর ফিল্মের খুঁটিনাটি, এডিটিং থেকে শুরু করে ফিল্ম মেকিং সংক্রান্ত সমস্ত কিছু শেখা।তবে বেশ কিছু বছর ধরে তাঁকে আর বলিউডে দেখা যাচ্ছে না, আজ সেই কারণই অনুসন্ধান করব আমরা, যে আসলে ওমিকে আর বড় পর্দায় কেন দেখা যাচ্ছে না।

বলিউডে একাধিক ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি যেমন দেশি বয়েজ, মিরর গেম, মেট্রো পার্ক, ব্ল্যাকমেল, জোড়ি ব্রেকার্স, প্লেয়ারের মতো সিনেমায়, যেখানে পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করে দর্শকের মনে জায়গা করে নিয়েছিলেন। তবে সবথেকে বেশি নজর কেড়েছিলেন থ্রি ইডিয়টস সিনেমায় তাঁর অভিনয়, ২০১১ সালের একটি জনপ্রিয় মুভি, যা আজও সমান জনপ্রিয় বলা চলে। এই সিনেমায় চতুরের চরিত্র যা আজও দর্শকের কাছে প্রিয়, তবে ২০১১ সালে থ্রি ইডিয়টসের পরে তিনি “দিল তো বাচ্চা হ্যায় জি”র মত ছবিতেও অভিনয় করেছিলেন, যেখানে তাঁর সাথে অভিনয় করেছিলেন অজয় দেবগন এবং ইমরান হাশমির মত অভিনেতারাও।

তবে ২০১৮ সাল তাঁকে বড় পর্দায় শেষবারের মতো দেখা যায়, বর্তমানে অবশ্য তাঁকে পাওয়া যায় শুধুমাত্র সোশ্যাল মিডিয়ায়, তাঁর নিজস্ব ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে, যেখানে তিনি প্রচুর শর্ট ভিডিও ক্লিপস পোস্ট করেন। কিন্তু প্রশ্ন হল বর্তমানে তিনি কোথায় আছেন? কি করছেন? প্রথমেই বলা যাক, বর্তমানে তিনি তাঁর স্ত্রী মিনাল পটল ও দুই সন্তানসহ তিনি আমেরিকার বাসিন্দা। তবে তিনি আশ্বস্ত করেছেন শীঘ্রই দর্শক তাঁকে এক নতুন রূপে পেতে চলেছেন, অর্থাৎ দর্শকের জন্য রয়েছে একটি বড় চমক, বর্তমানে তিনি সিনেমা পরিচালনার ব্যস্ত, একটি মারাঠি ছবিতে তিনি পরিচালকের কাজ করছেন, যার অধিকাংশ শুটিংই হয়েছে মহারাষ্ট্র এবং পুনের একাধিক এলাকায়।

তবে এখানেই শেষ নয় ওমিকে শুধু বলিউডে নয়, হলিউডেও কাজ করতে দেখেছি আমরা। দ্য অফিস নামের একটি আমেরিকান ধারাবাহিকে দুটি এপিসোডেও তিনি অভিনয় করেছেন। এছাড়াও অ্যারেস্টেড ডেভেলপমেন্ট, বোনস্ সিরিজেও কাজ করার কৃতিত্ব রয়েছে তাঁর। তবে এতকিছুর পরেও তিনি থ্রী ইডিয়টসের কথা ভুলতে পারেন না, আজও কোন নতুন সিনেমার স্ক্রিপ্ট পছন্দ না হলে তাঁর থ্রি ইডিয়টসের কথাই মনে পড়ে। এক কথায় বলা চলে তাঁর আমেরিকান স্টাইলে কথা বলার ভঙ্গিমাই চতুর চরিত্রের জনপ্রিয়তা এনে দিয়েছে এবং তার সাথে তাঁকেও তার ক্যারিয়ারে অনেকটাই সাফল্য এনে দিয়েছে। সম্প্রতি তিনি ইন্দো-আমেরিকান একটি সিরিজ যার নাম ব্রাউন নেশন ও নিজের পরিচালনার কাজ নিয়ে ব্যস্ততা তুঙ্গে।