আইনস্টাইনের মতো IQ , জিতেছিলেন KBC, সেই ‘Google Boy’ কৌটিল্য পণ্ডিত আজ এই ভাবে কাটাচ্ছেন জীবন

হরিয়ানা রাজ্যের একটি ছোট্ট গ্রাম কোহার, এই গ্রামের নাম আমরা অনেকেই জানতাম না কিন্তু একটি ছোট্ট বালকের জন্য আজ সারা বিশ্বের কাছে পরিচিত এই গ্রাম। যদিও সেই ছোট্ট বালক কাজ কৈশর জীবনে পদার্পণ করেছে। সারা দুনিয়া এই ছোট্ট বালকটিকে গুগল বয় নামে চেনে। কৌন বানেগা ক্রোড়পতি মঞ্চ থেকে গোটা দেশ চিনেছিল এই ছোট্ট ছেলেটিকে।

কৌটিল্য পণ্ডিত, যে বয়সে শিশুরা এ বি সি ডি অথবা স্বরবর্ণ ব্যঞ্জনবর্ণ শেখে, সেই বয়সে কম্পিউটারকে টেক্কা দিয়ে সমস্ত তথ্য মনে রাখতে পারত এই ছোট্ট শিশু। কুরুক্ষেত্র ইউনিভার্সিটি বৈজ্ঞানিকরা এই ছোট্ট ছেলেটির আইকিউ টেস্ট করে পরবর্তীকালে জানতে পারে, শিশুটির আইকিউ লেভেল প্রায় ১৫০ যা বিখ্যাত বিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইনের সমান। এরপর থেকেই কৌটিল্যর নামের পাশে নিয়ে আসে শব্দটি যোগ হয়ে যায়।

মাত্র পাঁচ বছর বয়সী এই ছোট্ট খুদে আজ থেকে প্রায় নয় বছর আগে কেবিসি মঞ্চে অদ্ভুত প্রতিভার পরিচয় দিয়ে সকলকে অবাক করে দিয়েছিল। অবাক হয়ে গিয়েছিলেন স্বয়ং অমিতাভ বচ্চন, তিনিও যে এই ছোট্ট শিশুর বড় ফ্যান হয়ে গিয়েছিলেন তা স্বীকার করতে কার্পণ্য করেননি তিনি। ওইটুকু বয়সে পৃথিবীর সমস্ত দেশের ভৌগোলিক সীমা, ক্ষেত্রফল এবং অন্যান্য যাবতীয় তথ্য মুখস্ত ছিল কৌটিল্যর। মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে বলে দিতে পারতো সৌরজগতের সঙ্গে সম্পর্কিত গ্রহ নক্ষত্র বিষয়ে। ওইটুকু বয়সে সারাবিশ্বে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল কৌটিল্য। কিন্তু তারপর ৯ বছর কোথায় হারিয়ে গেল সে? এখন কোথায় কিভাবে কাটছে তার দিন? তার সম্পর্কে জানতে আগ্রহী সকলেই।

কৌটিল্য চাণক্য বর্তমানে হরিয়ানার গুরুগ্রাম জেলার গোয়েনকা ওয়ার্ল্ড স্কুলে একাদশ শ্রেণীতে পড়াশোনা করছে। পড়াশোনার পাশাপাশি বেশ কিছু কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। চলতি বছর সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত জাতীয় পরিবেশ যুব সংসদে বক্তব্য রাখার সুযোগ পেয়েছিলেন কৌটিল্য। ২০১৬ সালে ইউ এই সরকারের কাছ থেকে সম্মান পেয়েছিলেন তিনি। ২০২০ সালে গ্লোবাল চাইল্ড প্রডিজি অ্যাওয়ার্ড ২০২০-২১ এ তার নির্বাচন হয়েছিল। লন্ডন দুবাই বা নেপালের মত জায়গায় বহুবার সাক্ষাৎকার দিয়ে এসেছেন এই ছোট্ট ছেলেটি।

ভবিষ্যতে একজন বিজ্ঞানী বা মহাকাশচারী হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করছেন কৌটিল্য। একবার ইসরো থেকেও তাঁকে ডাকা হয়েছিল। ৭ বছর পর কেবিসি মঞ্চে দ্বিতীয়বারের জন্য ডাক পেয়েছিলেন, তবে প্রতিযোগী নয় বিশেষজ্ঞ হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি। দুই প্রতিযোগীকে কঠিন প্রশ্নের উত্তর দিতে সাহায্য করে তাদের লক্ষ লক্ষ টাকা জিতে নেওয়ার সুযোগ করে দিয়েছিলেন কৌটিল্য।