LIC-র এমন ৫ টি প্ল্যান যেখানে চোখ বন্ধ করে করতে পারেন বিনিয়োগ

লাইফ ইন্সুরেন্স কর্পোরেশন অফ ইন্ডিয়া এমন একটি বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান যার মাধ্যমে প্রত্যেক মানুষ বিনিয়োগ করতে চান বারবার। বিনিয়োগকারীদের জন্য এবং প্রয়োজন অনুসারে বহুবার বহু নতুন পরিকল্পনা নিয়ে এসেছে এলআইসি। আজ তেমনি প্রয়োজনীয় পাঁচটি পরিকল্পনার কথা আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করে নেব আমরা।

এলআইসি জীবন লাভ: এলআইসি জীবন লাভ হল এমন একটি সীমিত প্রিমিয়াম প্রদানকারী, নন লিঙ্ক এবং লাভজনক একাউন্ট প্ল্যান যেটি সুরক্ষা এবং সঞ্চয় এর সমন্বয় প্রদান করবে আপনাকে। এই প্ল্যানের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে যদি পলিসিধারী দুর্ভাগ্যবশত মৃত্যুবরণ করেন। তবে তার পরিবার আর্থিক সহায়তা পাবে এবং যদি পলিসিধারী মেয়াদ শেষ হওয়া পর্যন্ত বেঁচে থাকেন তাহলে মেয়াদ পূর্তির সময় বড় পরিমাণ অর্থ পাবেন তিনি।

এলআইসি জীবন মঙ্গল নীতি: এই পলিসি ন্যূনতম ৬০ টাকার মাসিক প্রিমিয়াম থেকে শুরু হয়। এই প্ল্যানে আপনি ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত সুরক্ষা পেতে পারেন। এলআইসি জীবন মঙ্গল পলিসি হল একটি সুরক্ষা পরিকল্পনা, যার ম্যাচিউরিটির পর আপনি সম্পূর্ণ অর্থ ফেরত পেয়ে যাবেন। এই নীতিতে দুর্ঘটনার বেনিফিট রয়েছে। অর্থাৎ দুর্ঘটনা জনিত মৃত্যুর ক্ষেত্রে দ্বিগুণ ঝুঁকি কভার প্রদান করে এই বীমা। এটি একটি ব্যক্তিগত জীবন এবং ক্ষুদ্র বীমা পরিকল্পনা।

এলআইসি জীবন তরুন নীতি: এই নীতি অনুসারে শিশুরা সঞ্চয় এবং বীমা কভারে সুবিধা পায়। এটি এমন ভাবে সাজানো হয়েছে যাতে আপনি আপনার সন্তানের লেখাপড়া এবং বিয়ের খরচের জন্য টাকা তুলতে পারেন। এই জীবন বীমাতে ২০ থেকে ২৪ বছরের জন্য বার্ষিক সার্ভার বেনিফিট পাওয়া যায়। শিশুদের বয়স ২৫ বছর পূর্ণ হলে এই পলিসি ম্যাচিওর হয়ে যায়।

এলআইসি বীমা রত্ন যোজনা: এই প্ল্যানটি কর্পোরেট এজেন্ট, বীমা বিপণন সংস্থা, এজেন্টের মাধ্যমে কেনা যেতে পারে। এই পলিসিতে পলিসি ধারকের মৃত্যুর ক্ষেত্রে পরিবারের জন্য আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়। এই স্কিমটি নিলে আপনি ঋণ গ্রহণ করার ক্ষেত্রে বিশেষ কিছু সুযোগ সুবিধা পাবেন।

এলআইসি জীবন উমং: এই পরিকল্পনা আপনার পরিবারকে আয় এবং নিরাপত্তা দেবার পাশাপাশি বার্ষিক সারভাইভাল বেনিফিট দেবে। প্রিমিয়াম প্রদানের সময় থেকেই পরিশোধের শেষ পর্যন্ত এবং তারপর মেয়াদ পূর্তির সময় পর্যন্ত আপনি সমস্ত সুযোগ সুবিধা পাবেন। পলেসিধারীর যদি কোন সময় মৃত্যু হয় সে ক্ষেত্রেও আপনি সমস্ত সুযোগ-সুবিধা পাবেন।