পরপর ৯ টি ছবি সুপার ফ্লপ! তবুও বলিউড নিয়ে একাধিকবার উল্টোপাল্টা কমেন্ট করতে পিছুপা হন না কঙ্গনা

একসময় ইন্ডাস্ট্রিতে একের পর এক দুর্দান্ত সিনেমা উপহার দিয়েছিলেন কঙ্গনা রানাওয়াত। কুইন, তান্নু ওয়েডস মান্নু রিটার্ন, তানু ওয়েডস মানু সিনেমার মতো একাধিক দুর্দান্ত সিনেমা আমাদের উপহার দিয়েছিলেন তিনি। এরপর হঠাৎ করে আস্তে আস্তে তিনি একের পর এক ফ্লপ সিনেমা উপহার দিতে শুরু করেন আমাদের। নিজের রাগ ধরে রাখতে পারলেন না তিনি। সমস্ত রাগ গিয়ে পড়ল বলিউড ইন্ডাস্ট্রির ওপর। মাঝে এমন একটি ঘটনা ঘটে গেল যার ফলে বলিউড তো ছোট করে দেখানোর জন্য বড় একটি অস্ত্র পেয়ে গেলেন কঙ্গনা রানাওয়াত।

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে তিনি একের পর এক এলিগেশন দিতে শুরু করলেন বলিউডের ওপর। অনেকেই কঙ্গনা রাওয়াতকে ভীষণভাবে সমর্থন করতে শুরু করেন কিন্তু কিছুদিন যাওয়ার পর বোঝা যায় কঙ্গনা রানাওয়াত এই যুদ্ধ শুরু করেছিলেন নিজের জন্য। এরপর যখন তিনি রাজনীতি এবং কৃষক আন্দোলন নিয়ে কথা বলতে শুরু করেন তখন মানুষ মেনে নিতে পারে না। একাধিক বলিউড অভিনেতা অভিনেত্রীদের সঙ্গে বারবার বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন কঙ্গনা রানাওয়াত। মানুষ কিছুটা বীতশ্রদ্ধ হয়ে পড়ে এই অভিনেত্রীর পোস্ট দেখে। অবশেষে কঙ্কণা যখন আমাদের প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে কথা বলেন তখন টুইটার সম্পূর্ণভাবে ব্যান করে দেন এই অভিনেত্রীকে।

তবে দেরি করে হলেও হয়তো কঙ্কণা নিজের ভুল বুঝতে পেরেছেন। এপি সিনেমা যখন নারীকেন্দ্রিক হয়ে ওঠে তখন সেই নারীকে বা অভিনেত্রীকে কোন বেফাঁস মন্তব্য করতে নেই। সোশ্যাল মিডিয়াতে যে কোন মন্তব্য করে বসা এবং মুভি থিয়েটারে মানুষের মনে জায়গা করে নেওয়ার মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে।

অভিনেত্রী অভিনীত সর্বশেষ ৯ টি সিনেমা বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়েছে। অভিনেত্রী একজন বড় মাপের অভিনেত্রী হলেও শুধুমাত্র নিজের ভুলের জন্য আজ প্রত্যেকটি সিনেমা ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। এমন ভাবে চলতে থাকলে অদূর ভবিষ্যতে অভিনেত্রী কোন বড় ব্যানারের সিনেমা পাবেন বলে মনে হয় না। চলুন জেনে নেওয়া যাক কঙ্গনা রানাওয়াত অভিনীত কোন শেষ নয়টি ছবি বক্স অফিসে কেমন ব্যবসা করতে পেরেছিল।

১) ধাকড় : মোট বাজেট ১০০ কোটি, বক্স অফিসে এখনো পর্যন্ত আয় ৩.৫২ কোটি
২) থালাইভি : বাজেট ১০০ কোটি, বক্স অফিসে আয় ৪.৭৫ কোটি
৩) পাঙ্গা : মোট বাজেট ৪৯ কোটির হলেও বক্স অফিসে আয় ২২.৩৬ কোটি
৪) মনিকর্ণিকা : বাজেট ৯৯ কোটি টাকা, কিন্তু বক্স অফিস কালেকসন ৯০.৮১
৫) জাজমেন্টাল হ্যা ক্যায়া : বাজেট ৩২ কোটি টাকা হলেও এই ছবি মোট আয় করে ৩৩.৯৫ কোটি টাকা
৬) সিমরান : মোট বাজেট ২৮ কোটি, সেখানে বক্স অফিস কালেকশন ১৪.৮৯
৭) রঙ্গুন : মোট বাজেট ৬১ কোটি টাকা, বক্স অফিস কালেকশন ২০.২৭কোটি টাকা
৮) কাট্টি বাট্টি: মোট বাজেট ৩২ কোটি, বক্স অফিস কালেকশন ২৩.৭৫ কোটি টাকা
৯) আই লাভ এন ওয়াই : বাজেট ১৬ কোটি, সেখানে বক্স অফিসে মাত্র ১.২ কোটি উপার্জন করে এই সিনেমা।

নিজেকে আবার প্রমাণিত করার জন্য কতদিন সময় লাগবে অভিনেত্রীর তার সময় বলতে পারবে তবে আপাতত অভিনেত্রী যদি আর কোন কন্ট্রোভার্সির সঙ্গে জড়িয়ে না পারেন তাহলে খুব তাড়াতাড়ি তিনি নিজের জায়গা অর্জন করতে পারবেন কারণ এই বলিউড ইন্ডাস্ট্রি শুধুমাত্র মেধা দিয়ে চলে না, বুদ্ধি দিয়ে চলে।