জলে ডুবে যাওয়া ব্যক্তিকে বাঁচাতে হাতির নদীতে ঝাঁপ, ভাইরাল ভিডিও

মনুষ্যত্বের দিক থেকে মানুষ কতটা এগিয়ে তা নিয়ে কখনো কখনো সংশয় দেখা যায় বটে৷  কিন্তু বিশ্বাস ভালোবাসা ও প্রভুভক্তিতে বন্যপ্রাণী ও পোষ্যরা মানুষের থেকে কয়েক ধাপ হয়ত এগিয়ে থাকে। এমন অনেক দৃষ্টান্ত আছে, যখন প্রভুকে বাঁচাতে গিয়ে পোষ্য জীবনের ঝুঁকি নিয়েছে৷ এমনকি অপরিচিত ব্যক্তির ক্ষেত্রেও নিজের জীবনের তোয়াক্কা না করে অনায়াসেই ছুটে যায় তারা,সে দৃষ্টান্ত কিছু কম নয়। সম্প্রতি থাইল্যান্ডের নেচার পার্কের কাছে ঘটা একটি ঘটনায় আবারও প্রাণীদের বিশ্বাসযোগ্যতার দৃষ্টান্ত মিলল৷

থাইল্যান্ডের নেচার পার্কের কাছে জলে ডুবে যাচ্ছিলেন এক ব্যক্তি৷ তাকে বাঁচাতে গিয়ে খরস্রোতা নদীতে ঝাঁপ দেয় ছোট্ট এক হাতি। ভিডিওটি ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। ভাইরাল ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে জলের তোড়ে যখন মানুষটি অসহায় ভাবে ভেসে যাচ্ছেন,  তখন তিনি সাহায্যের জন্য আকুলভাবে হাত বাড়িয়ে ছিলেন। আর তাকে ডুবে যেতে  দেখে ছোট হাতি ততৎক্ষণাত  জলে নেমে যায়। জলের তীব্র গতিকে উপেক্ষা করে নিজের জীবনের প্রবল ঝুঁকি নিয়ে হাতিটি এগিয়ে যায় মানুষটিকে বাঁচাতে।

 

নিজে প্রায় অর্ধেক ডুবে গেছে৷ তখনও হাতিটি  প্রাণপণ চেষ্টা করছে নিজের শুঁড় দিয়ে  আঁকড়ে ধরতে মানুষটিকে। জলের বেগ বাড়ছে তাই শুঁড়ের সাথে সাথে নিজের পা ও পুরো শরীরটাকে বাড়িয়েই হাতিটি মানুষটিকে আঁকড়ে ধরে, যাতে জলের স্রোতে ভেসে না যায় মানুষটি। অবশেষে মানুষটি ঐ হাতির সাহায্যে পাড়ে উঠে আসতে সক্ষম হয়৷

CoWin অ্যাপে নথিভুক্ত না থাকলে সেই ব্যক্তিকে টিকা নয় নির্দেশিকা জারি করল রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর

উদ্ধারকারী এই হাতির নাম খাম লা। এলিফ্যান্ট নেচার পার্কেই এই হাতির দল থাকে। খাম লার ঘনিষ্ঠ বন্ধু  আরেক হাতি ডারিক ও তার বন্ধুকে ডুবতে দেখে এগিয়ে গিয়েছিল সাহায্য করতে।  এই ভিডিওটি শেয়ার করেছিলেন BSE র CEO আশিস চৌহান।  বন্যপ্রাণীর সহমর্মিতার এই ভিডিওতে ৫,৮৬০০০ এর বেশি মানুষ লাইক করেছেন ও ১৮,৩১২,৭২৬-র বেশি মানুষ এই ভিডিওটি দেখেছেন।

নিজের জীবন বিপন্ন করে অন্যের প্রাণ বাঁচাতে বন্যপ্রাণীরা যে কত সহজে এগিয়ে যেতে পারে তা আরও একবার সামনে এল৷ সকলেই প্রশংসা করেছেন হাতিটির৷ প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে Elephants News নামের একটি ইউটিউব চ্যানেলে প্রথম এই ভিডিওটি শেয়ার হয়েছিল। পুরোনো ঘটনা হলেও সাম্প্রতিকালে আবারও এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল।