দেশের জনগণকে আবারো জিও দিতে চলেছে বড় উপহার, এবার বিনামূল্যে টিউশনের সুবিধা দিবে সহজপাঠ…

টেলিকম জগতে জিও একটা বিপ্লবের নাম, কারণ জিও আসার পর থেকে টেলিকম সেক্টরে এক আমূল পরিবর্তন এসেছে। যখন টেলিকম সেক্টরে জিও আত্মপ্রকাশ করেনি তখন ডাটা ব্যবহার করা পরিমাণ এখনকার মতো ছিল না কারণ তখন এখনকার পারা রাজকীয়ভাবে ডাটা ব্যবহার করার ক্ষমতা সকলের ছিলনা। কারণ তখনকার দিনে ডাটার যা দাম ছিল তা সেটা অনেক মানুষের ক্ষেত্রে হাতের নাগালের বাইরে ছিল।

তবে এখন জিও আসার পর থেকে ধনী-গরিব সমস্ত ব্যক্তিই রাজকীয় ভাবে ডাটা ব্যবহার করার লাভ উঠাতে পারেন। আর এবার জিওর তরফ থেকে একটি নতুন প্রয়াস করা হচ্ছে যার মাধ্যমে দেশের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা নিজেদের মধ্যে একটি সেতু গড়তে পারবে। জিও তরফ থেকে একটি টোল ফ্রি নম্বর চালু করা হয়েছে যার মাধ্যমে দেশের যে কোন প্রান্তে থাকা শিক্ষার্থীরা পেয়ে যাবেন বিনামূল্যে টিউশনের সুবিধা।

আর এই পরিষেবাটি জিও ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সহজপাঠের উদ্যোগেই শুরু করা হতে চলেছে আর এই প্রোগ্রামটির নাম দেওয়া হয়েছে “টিচার-অন- কল” প্রোগ্রাম। আর এই পরিষেবা যেটি কে চালু করার কথা বলা হচ্ছে সেটিকে শিক্ষার্থীরা ব্যবহার করার সুবিধা দেশের যে কোন প্রান্ত থেকেই পেতে পারেন অর্থাৎ দেশের যে কোন গ্রামীণ এলাকায় হোক না কেন সেখানে থাকা শিক্ষার্থীরা এই সুবিধা লাভ উঠাতে পারবেন। সেসব শিক্ষার্থীরা পেয়ে যাবেন অভিজ্ঞ শিক্ষকদের কাছে পরামর্শ নেওয়ার সুবিধা তাও সম্পূর্ণ বিনামূল্যে।

আর গোটা দেশজুড়ে এরকমই “হেল্প ডেস্ক” চালু করতে চলেছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সহজপাঠ।কারণ দেশের এমন অনেক গরিব ঘরের ছেলে-মেয়েরা রয়েছেন যাদের পক্ষে প্রাইভেট টিউশন নেওয়ার সামর্থ্য নেই আর এবার সেই সব পড়ুয়াদের কথা মাথায় রেখেই এই নতুন প্ল্যাটফর্ম নিয়ে আসার চিন্তাভাবনা করা হয়েছে জিও ও সহজ পাঠের তরফ থেকে। দেশজুড়ে শিক্ষার আলোকে ছড়িয়ে দিতে সহজপাঠের সঙ্গে জুড়ে এই পরিষেবা প্রদান করতে রাজি রিলায়েন্স জিও। অন্যদিকে জিওর তরফ থেকে একথা জানানো হয় যে আমরা কিভাবে সহজ পাঠের সঙ্গে জুড়তে পেরে অত্যন্ত খুশি। অভাবে শিক্ষার আলো যাতে না নিভে যায় সেটা দেখায় আমাদের কাজ আর দেশের ঘরে ঘরে এই কর্মসূচি ছড়িয়ে দিতে আমরা বধ্যপরিকর।