মোদীকে খুন করার ছক তৈরি করছিল পাকিস্তানের স্পেশাল স্কোয়াডের প্রকাশ্যে এল চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট

এবার পাকিস্তানের গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই এর প্রধান লক্ষ্য ভারতের কোন বিশেষ জায়গা বা কাশ্মীর নয়। তাদের প্রধান লক্ষ্য এখন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উপর হামলা চালানো। আর তারা এই উদ্দেশ্য সফল হওয়ার জন্য একটি বিশেষ কমিটি তৈরি করেছে এমনটাই খবর বেরিয়ে আসছে। প্রাপ্ত খবর থেকে জানতে পারা যাচ্ছে এই স্কোয়াডের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে জইশ-ই-মহম্মদের মত পাক মদদপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন গুলি।

খবর সূত্রে যা জানতে পারা যাচ্ছে সেখানে আরও জানা যাচ্ছে যে ইতিমধ্যে এই পাক মদদপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন গুলির সাথে হাত মিলিয়েছে আইএসআই। আরো আপনাদের বলে রাখি এই খবরটি টাইমস অফ ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে মিলেছে। তবে প্রাপ্ত খবর থেকে আরো জানতে পারা গেছে এই জঙ্গি সংগঠন গুলির লক্ষ্য শুধুমাত্র ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীই  নন তার সাথে রয়েছেন দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল এর নাম।

ভারতীয় গোয়েন্দার তরফ থেকে পাওয়া খবর থেকে জানতে পারা কাছে কাশ্মীর থেকে 370 ধারা প্রত্যাহার এরক্ষেত্রে এই তিন জনই বেশি ভূমিকা পালন করেছিলেন, তাই পাক জঙ্গি তালিকার শুরুতে রয়েছে এনাদের নাম।তবে এখন এক বিদেশী গোয়েন্দা সংস্থার জইশের অন্যতম নেতা শামসের ও তার সদস্যদের মধ্যে চলার রুদ্ধদ্বার বৈঠকে কিছু তথ্য হাতে পাওয়া গেছে। আর এই তথ্য থেকেই জানতে পারা গেছে যে সেখানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে খুন করার পরিকল্পনা করা হচ্ছিল।

পাশাপাশি ওই সংস্থার হাতে এসেছে একটা লিখিত তথ্য ও। সেপ্টেম্বরে হামলা চলতে পারে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির উপর এমনটাই আশঙ্কা প্রকাশ করেছে ওই সংস্থা। আর তারপরই ইতিমধ্যে দেশের তিরিশটি বড় শহরে কড়া নিরাপত্তা জারি করে দেওয়া হয়েছে। জম্মু, পাঠানকোট, জয়পুর, অমৃতসর, কানপুর, গান্ধীনগরের মতো শহর গুলোতে জারি করা হয়েছে হাই এলার্ট। তবে অন্যদিকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এর নিরাপত্তা বাড়ানো বিষয়ে কথাবার্তা করা হলে তা নিতে অস্বীকার করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এক রিপোর্ট অনুযায়ী জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার তরফ থেকে অমিত শাহ কে এনএসজি স্তরের নিরাপত্তা দেওয়ার কথা জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি স্পষ্ট  জানিয়ে দিয়েছেন যে তিনি সিআরপিএফ নিরাপত্তায় সম্পূর্ণ সুরক্ষিত বোধ করেন তাই তার অন্য কোন নিরাপত্তার প্রয়োজন নেই।তবে এর আগে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদীর পরও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও একাধিকবার প্রাণনাশের হুমকিও পেয়েছেন বলে খবর। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের একটি কমিটি এনএসজি স্তরে সুরক্ষার প্রয়োজনীয়তা আছে বলে জানালেও তা কার্যকর হয়নি।

অমিত শাহের আগে রাজনাথ সিং থেকে পি চিদাম্বরম , সুনীল কুমার সিন্ধে, এবং শিবরাজ সিং প্রত্যেকে এই নিরাপত্তার আওতায় ছিলেন। এর আগেও মাওবাদীরা নরেন্দ্র মোদিকে খুনের পরিকল্পনা করেছেন আর এই তথ্য সামনে আসার পর প্রধানমন্ত্রী র নিরাপত্তাকে আরো জোরদার করা হয়েছে। এমনকি মুম্বই হামলার মূল অভিযুক্ত হাফেজ সাইদ এর অন্যতম হাত তথা জঙ্গি নেতা মাওলানা বসির আহমেদ খাকি প্রকাশ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কে ঘুনের কথা জানিয়েছিলেন। ফলে একের পর এক গোয়েন্দা সূত্রে পাওয়া খবর গুলিকে মোটেও হালকা করে দেখছেন না নিরাপত্তার অধিকারীকরা।