ব্রেকিং খবরঃ পুলওয়ামা হামলার মাস্টারমাইন্ড জৈশ এর জঙ্গিদের খতম করল সেনা, এখনো চলছে তল্লাশি অভিযান…

বৃহস্পতিবার পুলওয়ামায় সিআরপিএফের কনভয়ে হামলা চালায় জঙ্গিরা এই ভয়ঙ্কর বিস্ফোরণের ফলে শহীদ হন 40 জনেরও বেশী সিআরপিএফ জওয়ান আহত হয় আরো অনেকে।আর তারপর থেকে এলাকায় তল্লাশি নেমেছে সিআরপিএফ, সেনা ও কাশ্মীর পুলিশ বাহিনী। তবে পুলওয়ামা কান্ডের বড় সাফল্য বেরিয়ে এলো এবার ভারতীয় সেনার পক্ষ থেকে। জৈশ-এ- মহম্মদ সংগঠনের শীর্ষ জঙ্গি কামরানের গোপন ডেরা উড়িয়ে দিল ভারতীয় সেনা। আর তাতেই মারা গিয়েছে পুলওয়ামা হামলার মাস্টারমাইন্ড কামরানসহ দুই জঙ্গি। পুলওয়ামায় শহীদ জওয়ানদের বদলা নিল এবার ভারতীয় জওয়ানরা। পুলওয়ামায় পিংলা গ্রামে সোমবার ভোর রাত থেকে সেনা এবং জঙ্গির মধ্যে গুলির লড়াই বেঁধেছিল আর তার মধ্যেই শহীদ হয় এক মেজরসহ ভারতীয় সেনাবাহিনীর 4 জন জওয়ান।

তবে চলতে থাকে কন্টিনিউয়াস তল্লাশি। ভারতীয় গোয়েন্দা সূত্রে খবর আসে যে পুলওয়ামা হামলায় মাস্টারমাইন্ড এবং জঙ্গিরা এখনো পর্যন্ত লুকিয়ে রয়েছে সেখানে আর খবর পাওয়া মাত্রই ভারতীয় সেনারা ওই এলাকাকে ঘিরে ফেলে। আর তাতেই আটক হয় কামরান সহ তিন জঙ্গি। তবে এবার ভারতীয় সেনা দাবি জঙ্গিদের সাথে ভারতীয় সেনার গুলির লড়াইয়ে মারা গিয়েছেন কামরান।সূত্র অনুসারে জানতে পারা গেছে এই পাক জঙ্গী কামরান হল, জৈশ- ই – মহম্মদ মাসুদ আজহারের খুবই ঘনিষ্ঠ। আরও জানতে পারা যায় মাসুদের ভাইপোর হত্যার বদলা নিতেই কামরানকে নাকি কাশ্মীরে ভারতীয় সেনা বাহিনীর ওপর হামলা করা বড় দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল আর তার নজরদারিতে হয়েছিল বৃহস্পতিবার পুলওয়ামায় সিআরপিএফ কনভয়ে জঙ্গি হামলা। জঙ্গি আদিল আহমদকে প্রশিক্ষণ দিয়েছিল এই মাস্টারমাইন্ড।

আর এই মাস্টারমাইন্ডের খোঁজেই মারিয়া হয়ে উঠেছিল ভারতীয় সেনা। বৃহস্পতিবার সেনা কনভয়ে বিস্ফোরণে র পর থেকে এই উপত্যকা জুড়ে নিরাপত্তা বাহিনীকে আরও জোরদার করা হয়েছিল। সিদ্ধান্ত করা হয়েছিল সীমান্তে থাকা সমস্ত জঙ্গি ঘাঁটিগুলিকে গুঁড়িয়ে দেবে ভারতীয় সেনা। আরে এর দরুনই শনিবার রাত থেকে শুরু হয়েছে সেনাবাহিনীর অ্যাকশন।এখনো পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে সেনারা তাদের অভিযান এখনো চালু রেখেছে কারণ ভারতীয় সেনারা চায়না কোন প্রকার জঙ্গি যাতে বেঁচে ফিরে যেতে পারুক। ভারতীয় সেনারা জানিয়েছেন যতক্ষণ না সব জঙ্গিকে নিকেশ করা হবে, ততক্ষণ তারা এই অভিযান জারি রাখবে।