যুগ যুগ ধরে চলে আসা নীতিকে বদলে ফেলে! এবার দীপাবলীর আগে সরকারি কর্মীদের বড় উপহার দিল মোদি সরকার..

উৎসবের মরসুমে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের জন্য নানান সুখবর এনে দিয়েছে রাজ্য সরকার। কিন্তু এবার কেন্দ্রীয় সরকার পিছিয়ে না পড়ে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের জন্য সুখবর এনে দিল উৎসবের মরসুমে। এই উৎসবের মরসুমে কেন্দ্রীয় সরকারের কর্মীদের আগে সুখবর এল। যেহেতু কেন্দ্র উপহার নীতি শিথিল করলো তাই উপহারের আর্থিক ঊর্ধ্বসীমাও বাড়ানো হলো। বিদেশিদের কাছ থেকেও উপহার নেওয়ার যে নীতি ছিল তা মোদি সরকার আসার পর বদল এনেছে।

কেন্দ্রের কর্মী বর্গীয় মন্ত্রক সূত্রে এমনটাই খবর পাওয়া গেছে। তবে এটা মনে রাখবেন যে এই উপহার নীতির মধ্যে ‘এ’, ‘বি’, এবং ‘সি’ শ্রেণীর কর্মচারীরা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এতদিন ধরে যা নিয়ম দিয়েছিল তা হল, আধিকারিক পদমর্যাদার ‘এ’ এবং ‘বি’ শ্রেণীর কর্মচারীরা 2000 টাকার বেশি মূল্যের কোন উপহার নিতে হলে সরকারের অনুমোদন নেওয়া বাধ্যতামূলক ছিল। এই উর্ধ্বসীমা এবার থেকে বাড়িয়ে 5 হাজার টাকা করা হলো।

এবার থেকে 5000 টাকার মূল্যের বেশি কোন উপহার নিতে হলে সরকারের অনুমোদন নিতে হবে। কিন্তু ‘সি’ ক্যাটাগরির কর্মচারীরা কোনো অনুমোদন ছাড়াই 2000 টাকা পর্যন্ত আর্থিক মূল্যের উপহার নিতে পারেন যেখানে পূর্বে ছিল 500 টাকা। যাতায়াত সহ থাকা- খাওয়া থেকে শুরু করে অন্যান্য আর্থিক সুবিধাও সরকারের এই সুবিধার মধ্যে অন্তর্গত। যদিও মন্ত্রকের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে জানানো হয়েছে যে, সামাজিক আতিথেয়তাকে কোনভাবেই উপহার হিসেবে গণ্য করা হবে না।

শুধু এটাই নয় এর পাশাপাশি বিদেশ থেকে উপহার গ্রহণ করার নিয়মের ক্ষেত্রে কিছু পরিবর্তন এনেছে কেন্দ্র সরকার। এর আগে যে 1000 টাকা উর্ধ্বসীমা ছিল তা তুলে নেওয়া হয়েছে সরকারের তরফ থেকে। কিন্তু এই উর্ধ্বসীমা তুলে কতটা বাড়ানো হয়েছে তা সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত মন্ত্রকের তরফ থেকে এ বিষয়ে কোনো বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়নি। কিন্তু শিল্প বা বাণিজ্যিক সংস্থার কাছ থেকে এভাবে সরাসরি অধিকারীদের উপহার গ্রহণ করার ক্ষেত্রে কিছু কড়াকড়ি নিয়ম এনেছে। এর কারণ হলো, এ বিষয়ে একটি বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে সরকারিভাবে কোনো সংস্থার সঙ্গে চুক্তিতে অংশগ্রহণকারী আধিকারিকদের এই আতিথিয়তা বিষয়টি পুরোপুরি ভাবে এড়িয়ে হবে। সেক্ষেত্রে আধিকারিকদের কোনো দামী উপহার দেওয়া চলবে না।