ভুলে যান উর্ধ্বমুখী পেট্রোলের দাম, স্বদেশী সোলার কার তৈরি করছে ISRO, শীঘ্রই বাজারে আনবে TATA

পেট্রোল এবং ডিজেলের দাম নিয়ে আলাদা করে বলার কিছু নেই। আমরা এমন একটি জীবনে অভ্যস্ত হয়ে গেছি, যে প্রতিনিয়ত আমাদের স্কুটার অথবা বাইসাইকেল চালানোর জন্য জ্বালানি হিসেবে পেট্রোল অথবা ডিজেল দরকার হয়। সে ক্ষেত্রে ক্রমবর্ধমান দামের ফলে সাধারণ মানুষের অবস্থা ভীষণভাবে শোচনীয় হয়ে পড়েছে।যদিও সাধারণ মানুষের কথা মনে করে কেন্দ্রীয় সরকার বৈদ্যুতিক গাড়ি প্রচারের কাজে লেগে পরেছেন ইতিমধ্যেই। কিন্তু বৈদ্যুতিক যানবাহন এখনো সাধারন মানুষের নাগালের বাইরে রয়েছে।

অন্যদিকে বৈদ্যুতিক গাড়ি কত দিন চলবে এবং কিভাবে চলবে তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে সাধারণ মানুষের মনে। এবার মানুষের মনে আরও একটি নতুন প্রশ্ন জেগেছে, যখন সৌরশক্তি সমস্ত শক্তির উৎস, তখন কেন যানবাহনে তা ব্যবহার করা হচ্ছে না? সৌর শক্তিকে ব্যবহার করলে প্রাকৃতিক শক্তির অপব্যবহার হবেনা অন্যদিকে সৌরশক্তি চালিত যানবাহনের দাম অনেকটাই কম হবে।

কিন্তু এবার প্রশ্ন হল, অদূর ভবিষ্যতে আমাদের যানবাহন সূর্যের আলোতে চলতে পারবে কিনা। আপনাদের জানাই, ভারতীয় গবেষণা সংস্থা ISRO ইতিমধ্যেই একটি সোলার হাইব্রিড ইলেকট্রিক গাড়ি তৈরি করে ফেলেছে। যে গাড়িতে দেশের সম্পদ ব্যবহার করেছে ইসরো।

কেরালার রাজধানী তিরুবন্তপুরমে অবস্থিত বিক্রম সারাভাই স্পেস সেন্টারে এই গাড়িটি প্রদর্শন করা হয়েছিল। বিক্রম সারাভাই স্পেস সেন্টার, যারা ইতিমধ্যেই অনেক ধরনের রকেট তৈরি করে ফেলেছে। বর্তমানে ইসরো সৌরশক্তি চালিত গাড়ি প্রদর্শনীর পাশাপাশি এই গাড়ির খরচ কমানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে যাতে এই গাড়ি সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যে আনা যায়।

বিজ্ঞানীদের মতে, পেট্রোল এবং ডিজেল চালিত যানবাহন থেকে যে পরিমাণে পরিবেশ দূষণ হয়, তার থেকে অনেক কম দূষণ হবে সৌরশক্তি চালিত গাড়িতে। এই গাড়িতে এমন একটি ব্যাটারি থাকবে যা সূর্যের আলোতে চার্জ দেওয়া যাবে। তবে যানবাহন উৎপাদনের প্রধান চ্যালেঞ্জগুলির মধ্যে অন্যতম হলো, গাড়ির ওপর এমন একটি সোলার প্যানেল তৈরি করতে হবে যেখানে ব্যাটারি নিয়ন্ত্রণকারী ইলেকট্রনিক্স এবং সোলার প্যানেল ইন্টারফেস থাকবে।

এই গাড়ির দাম যাতে সাধারণ মানুষের হাতের নাগালে থাকে, তার জন্য সমস্ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরো। এখন দেখতে হবে গাড়িটি কবে বাজারে বিক্রি করা হবে। ISRO পাবলিক প্রোডাকশনের জন্য সবুজ সঙ্কেত পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ভারতবর্ষের প্রথম সারির কম্পানিগুলি যেমনটা tata ও marutir মত কোম্পানি সাধারণ মানুষের সামনে তাঁদের মডেল নিয়ে হাজির হবে।