চাপ বাড়তে চলেছে চীনের, স্বাধীনতা দিবসের আগেই ভারতীয়দের জন্য বড়োসড়ো সুখবর নিয়ে আসছে ISRO

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে স্বাধীনতা দিবসের ৩ দিন আগে অর্থাৎ ১২ ই আগস্ট ভারতীয়দের জন্য একটি বড়সড় সুখবর আসার সম্ভাবনা রয়েছে। ঐদিন ইসরো মহাকাশে একটি উপগ্রহ স্থাপন করতে চলেছে, যার দরুন ভারতের শক্তি বৃদ্ধি পাবে বহুগুণ। ইসরো মহাকাশে GISAT-১ স্যাটেলাইট প্রেরণ করবে যা মহাকাশ থেকে মূলত মনিটরিং এর কাজ করবে। এই স্যাটেলাইটটি ভারতের বাহ্যিক এবং অভ্যন্তরীণ দুটি কাজে ব্যবহার করা সম্ভব হবে।

উদাহরন হিসাবে বলতে গেলে লাদাখ সীমান্তে চীনের সেনারা কোন উপদ্রব করার চেষ্টা করলে তার ছবি স্পষ্ট স্যাটেলাইট থেকে দেখতে পাওয়া যাবে। বা কোথাও কোনো দাবানল সৃষ্টি হলে, সমুদ্রের মাঝে কোথাও দুর্ঘটনা ঘটলেই স্যাটেলাইট এর সাহায্যে পর্যবেক্ষণ অনেকটাই সহজ হবে বলে জানা যাচ্ছে।ইসরোর প্রমুখকে সিভান জানিয়েছেন GSLV MK২ দ্বারা স্যাটেলাইট লঞ্চ করা হবে। স্যাটেলাইট লঞ্চ এর অফিশিয়াল ডেট ১২ ই আগস্ট যে নয় সেটাও পরিষ্কার করে দেন তিনি। তবে সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ১২ ই আগস্ট ভারত মহাকাশে নিজের জেমস বন্ড নিযুক্ত করবে। কিছুদিন আগে অবশ্য GSAT-১ লঞ্চ করার চেষ্টা করলেও সফল হওয়া সম্ভব হয়নি। চীন ইতিমধ্যেই নিজেদের গোয়েন্দা স্যাটেলাইট মহাকাশে পাঠিয়েছে।

২০১৯ সালে গাওফেন-৭ স্যাটেলাইট পাঠিয়েছিল চীন যা মহাকাশ থেকে পৃথিবীর যে কোনো স্থানের উপর নজর রাখতে সক্ষম। চীনা মিডিয়া দাবি করেছিল যে গাওফেন- ৭ স্যাটেলাইট টি সবথেকে উন্নত মানের স্যাটেলাইট। এই স্যাটেলাইট লঞ্চ এর সময় বিশ্বের অনেক তাবড় তাবড় দেশ আপত্তি প্রকাশ করকেও কর্ণপাত করেনি চীন। চীন স্পষ্ট জানিয়েছিল এই স্যাটেলাইটটি কোন দেশের গোয়েন্দা গিরি করার জন্য ব্যবহার করবে না তারা।

শুধুমাত্র ম্যাপিং ও জমি সংক্রান্ত কাজে ব্যবহার করা হবে। অনেকেই দাবি করেন লাদাখ সীমান্তে গাওফেন-৭ স্যাটেলাইট ব্যবহার করে চীন ভারতীয়দের কার্যকলাপের ওপর নজর রাখছে এবং সেনাবাহিনীকে ঐ সমস্ত ছবি পাঠানো হচ্ছে। তবে এবার চীনের কার্যকলাপকে বন্ধ করে দিতে ২০২০ সালে GSAT-১ স্যাটেলাইট লঞ্চ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, তবে সেই সময় হয়ে উঠতে পারেনি। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলেও ইসরোতে আসা একটি ফোন কল এই স্যাটেলাইট লঞ্চকে বন্ধ করে দেয়।

ফোন কল কে করেছিল বা ফোনে কি এমন কথা বলা হয়েছিল যার জন্য স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ বন্ধ করে দেওয়া হল যদিও তা জানা যায়নি তবে ভারতীয় এই স্যাটেলাইটটি খুবই শক্তিশালী একটি উপগ্রহ মাটিতে পড়ে থাকা একটি কয়েনের ছবি ও স্পষ্ট তুলে আনতে সক্ষম। এমত অবস্থায় যদি স্বাধীনতা দিবসের আগে ভারত GSAT-১ স্যাটেলাইট লঞ্চ করতে পারে , তাহলে ভারতের জন্য একটি বড় জয় বলেই গণ্য করা হবে।