ভারতকে আরও শক্তিশালী করতে অত্যাধুনিক অস্ত্র দিচ্ছে ইজরায়েল, শুনে রাতে ঘুম উড়ছে চীনের…

শত্রুপক্ষকে কড়া জবাব দেওয়ার জন্য একের পর এক পদক্ষেপ নিয়ে চলেছে ভারত সরকার।সাম্প্রতিক খবর পাওয়া যাচ্ছে যে ভারত, ইসরাইলের কাছ থেকে 12 টি স্পাইস লঞ্চার এবং 200 টিরও বেশি ক্ষেপণাস্ত্র কিনছে। শুধু এই প্রথমবার নয় ইজরায়েলের কাছ থেকে এর আগে ভারত আরো অনেক অস্ত্রশস্ত্র কিনেছে এর আগে। আপনাদের জানিয়ে দিই, লাদাখ সীমান্তে পরিস্থিতি এখন আগের তুলনায় ঠান্ডা থাকলেও সীমান্ত থেকে এখনো পর্যন্ত পিছু হটে নেই চীনের সেনারা। তাই চীনের ওপর ভরসা না করে ভারত নিজেদের সামরিক শক্তি বাড়িয়ে চলেছে যাতে শত্রুপক্ষকে কড়া জবাব দেওয়া যায়।

ইসরাইলের কাছ থেকে ভারত স্পাইস 2000 বোম্ব কিনতে চলেছে ভারত। এই বোম্বটির কতখানি ক্ষমতা তা আমরা এর আগে দেখেছি। বালাকোটে ভারতীয় বায়ুসেনা যখন পাকিস্তানের উপর এয়ারস্ট্রাইক করেছিল তখন ভারতীয় বায়ুসেনা এই বোম্বটির ব্যবহার করেছিল। ভারতীয় বায়ুসেনা এয়ার স্ট্রাইক করে বালাকোটের জঙ্গি ঘাঁটি একেবারে ধুলিস্যাৎ করে দিয়েছিল। এছাড়াও ইজরায়েলের উন্নত প্রযুক্তি দিয়ে তৈরি হেরন ড্রোন কিনেছে ভারত। এর দ্বারা ভারত সীমান্তবর্তী এলাকায় নজরদারি চালাচ্ছে।

ভারতীয় সোনার হাতের আছে ইজরায়েলি স্পাইডার মিসাইল। নিজেদের সামরিক শক্তিকে আরও বাড়াতে ইসরাইলের সাথে অ্যান্টি ট্যাংক স্পাইক মিসাইল কেনার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছে ভারত।  আমরা জানি সামরিক দিক থেকে বেশ শক্তিশালী চীন। তাই ভারত চুপ করে বসে না থেকে নিজেদের সামরিক শক্তি বাড়াতে ব্যস্ত এখন। কিছুদিনের মধ্যে ভারতের হাতে চলে আসবে ক্ষেপণাস্ত্র এবং লঞ্চার।আপনাদের জানিয়ে দেই, এর আগে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে ভারতীয় সেনাবাহিনীকে 500 কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে।

আর এই অর্থ দিয়েই ভারতীয় সেনাবাহিনীর আমেরিকা এবং ইসরাইলের কাছ থেকে আধুনিক অস্ত্রশস্ত্র, বোম, ক্ষেপণাস্ত্র এই সমস্ত কিছু কেনার পরিকল্পনা করছে। ভারতীয় সেনাবাহিনীরা শুধুমাত্র বাইরের দেশের উপরে নির্ভর থাকেনি, ভারতেও এবার তৈরি হচ্ছে দেশীয় প্রযুক্তিতে অস্ত্রশস্ত্র। পুরোপুরি দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি হতে চলেছে 300 টি ‘নির্ভয়’ ক্রুজ মিসাইল। ভারতের তৈরি এই মিসাইল 1000 কিলোমিটার পর্যন্ত আঘাত হানতে সক্ষম। জানা গিয়েছে এই মিসাইল দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে সম্পূর্ণ ভাবে তৈরি হয়ে যাবে।