ভারতের সবথেকে কাজের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ, সমীক্ষায় জনপ্রিয়তার শিখরে পরপর তিনবার..

করোনার মধ্যেও ভারতে জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠে এলো প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর দেশের সেরা মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বিবেচিত হলেন যোগী আদিত্যনাথ। উল্লেখ্য বেসরকারি সংবাদ মাধ্যম সংস্থা আজতক দেশের বিভিন্ন রাজ্য সরকারের কাজ নিয়ে সমীক্ষা চালিয়েছেন যেখানে সমীক্ষায় তারা জনতার কাছে দেশের আলাদা আলাদা রাজ্য সরকারের কাজ নিয়ে প্রশ্ন করেন এবং এই সমীক্ষার মাধ্যমে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ জনতার কাছে সবচেয়ে জনপ্রীয় এবং কাজের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে বিবেচিত হয়েছেন।

এই নিয়ে ইন্ডিয়া টু-ডের মুড অফ নেশনস (Mood of the Nation) এর তরফ থেকে একটি সমীক্ষা করা হয়েছিল যেখানে বেরিয়ে এসেছে এই সমীক্ষার ফলাফল এবং এই সমীক্ষা অনুযায়ী সবচেয়ে বেশী 24 শতাংশ মানুষ মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে পছন্দ করেছেন।আর এই একই সমীক্ষা চালানো হয়েছিল গত জানুয়ারি মাসে যখন এই সমীক্ষার দ্বারা জানুয়ারি মাসে 18 শতাংশ মানুষ মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে যোগী আদিত্যনাথ এর ওপর ভরসা রেখে ছিলেন।অর্থাৎ জানুয়ারি মাস থেকে এখন আগস্ট মাস পর্যন্ত দেশজুড়ে করোনা আবহের মধ্যেই এক ফোঁটা কমে যায়নি যোগী আদিত্যনাথের মানুষের ভরসার পরিমাণ বরং আগের তুলনায় আরো 6 শতাংশ বেশি জনগন যোগী আদিত্যনাথের কাজের ফ্যান হয়েছেন।

যোগী আদিত্যনাথ এর পরেই সমীক্ষা অনুযায়ী দ্বিতীয় স্থান হাসিল করেছেন মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল যেখানে তিনি 15 শতাংশ ভোট পেয়েছেন, তারও কিন্তু এক্ষেত্রে জনপ্রিয়তা খানিকটা বৃদ্ধি পেয়েছে কারণ গত জানুয়ারি মাসে তার জনপ্রিয়তা ছিল 11 শতাংশ, এখন 4 শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে তার জনপ্রিয়তা দাড়িয়েছে 15 শতাংশ তে । এক্ষেত্রে তৃতীয় নম্বরে রয়েছেন অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী ওয়াই এস জগন মোহন রেড্ডি যেখানে তিনি পেয়েছেন 11 শতাংশ মানুষের সমর্থন।

আগেরবার যখন এই সমীক্ষা করা হয়েছিল; তখন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ পেয়েছিলেন 18 শতাংশ ভোট। দেশের সেরা 7 জন মুখ্যমন্ত্রীর মধ্যে; 6 জনই অকংগ্রেসি, এবং অবিজেপি। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়; এই সমীক্ষায় দেশের মধ্যে চতুর্থ স্থান পেয়েছেন, এক্ষেত্রে তিনি পেয়েছেন 9 শতাংশ ভোট।
বলে রাখি এর আগে জানুয়ারি মাসে ওনাকে দেশের 11 শতাংশ মানুষ পছন্দ করতেন। তবে এখন সেটি কমে 9 শতাংশে দাঁড়িয়েছে। এই তালিকায় পঞ্চম স্থানে আছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নিতিশ কুমার এবং মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরে।