দেশনতুন খবরবিশেষভারতীয় সেনা

ইমরানের নাটকে মাতলেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, তিন বাহিনীর প্রধানকে ডেকে দিয়ে দিলেন স্পষ্ট নির্দেশ। যেকোনো মুহূর্তে শুরু হতে পারে একশন…

যদিও পাকিস্তানের ভুলের কোনো সীমা নেই তারা ভুল করে শিক্ষা নিয়ে ভুল শুধরে নেয় না বরং তারা তার থেকেও বড় ভুল করতে থাকে পরবর্তীকালেও। পাকিস্তান একটা ভুল করেছিল কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলা করে। আর একটা ভুল করেছে গতকাল ভারতে এফ-সিক্সটিন যুদ্ধ বিমান ঢুকিয়ে। যার ফল পাকিস্তানকে ভুগতে হবে এটা নিশ্চিত করে দেওয়া হয়েছে ইতিমধ্যেই। কাশ্মীরের পুলওয়ামা জঙ্গি হামলার পর ভারত পাকিস্তানের ভেতরে ঢুকে তাদের আতংবাদি ক্যাম্প গুলিতে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালায়। তবে এতে ভারত লক্ষ্য রেখেছিল যেনো তাদের এই সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের দরুন কোন পাকিস্তানের সাধারণ নাগরিকদের কোনো প্রকার ক্ষতি না হয় ।

 

 

অর্থাৎ এই এয়ার সার্জিক্যাল স্ট্রাইক শুধু করা হয়েছিল পাকিস্তানের জঙ্গী ঘাটি গুলিতে, কোন প্রকার সাধারণ মানুষের ওপর না। কিন্তু তারপরও পাকিস্তান সেনাবাহিনীর যে কর্মকাণ্ড গুলি করে চলেছে তাতে ভারতীয় দের সহ্য সীমা ভেঙে গেছে। আপনাদের বলে রাখি ভারতের এই এয়ার স্ট্রাইক করার পর পাকিস্তানের সেনারা সীমান্তে নিয়ম লংঘন করে বোমাবাজি,গোলা বর্ষণ করে ভারতীয় সীমান্তের গ্রামগুলিকে আক্রমণ করার চেষ্টা করছে। এমনকি এর পর গতকাল ভারতের সীমান্ত পার করে তিনটি এফ-সিক্সটিন বিমান নিয়ে ভারতের মধ্যে আক্রমণের চেষ্টাও চালিয়েছিল পাক সেনাবাহিনী যার দরুন ভারত পুনরায় এয়ার স্ট্রাইক ব্যাক করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।এখন আপনাদের বলে রাখি যে খবরটি সামনে আসছে সেটি পাকিস্তানের ঘুম উড়িয়ে দিয়েছে প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই মুহূর্তে তিনটি সেনার হাত খুলে দিয়েছেন অর্থাৎ স্থল, জল ও বায়ু সেনা বাহিনীর হাত খুলে দিয়েছে।

 

অর্থাৎ ভারতীয় সকল সেনাবাহিনী পাকিস্তানের উপর যে কোনো রকমের কার্যবাহী করতে পারে। এই তিনটি সেনা বাহিনীকে খোলাখুলি ছাড় দিয়ে দেওয়া হয়েছে যার ফলে পাকিস্তানের পুনরায় প্যানিকের সৃষ্টি হয়েছে। এই খবর পাওয়া মাত্রই পাকিস্তানের করাচিতে প্রশাসনিক এমার্জেন্সি ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে ইতিমধ্যে ই । ইসলামাবাদ, গিলগিট ছাড়াও Pok এর বড় এলাকা, সেক্টর ,লাহোর ,শিয়ালকোট এবং সামুদ্রিক সীমা এর কাছাকাছি এলাকাগুলোতে পুরো রাত ব্ল্যাক আউট রাখা হয়েছিল এছাড়াও খাইবার পাখতুনখা এলাকায় সমস্ত হাসপাতালগুলিতে হাই এলার্ট এ রাখা হয়েছে। এখনো পর্যন্ত পাওয়া প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে সেখানে সমস্ত স্বাস্থ্য কর্মীদের ছুটি ইতিমধ্যে বাতিল করে দেওয়া হয়েছে কারণ তাদের মধ্যে এখন একটা প্যানিক এর সৃষ্টি হয়েছে।

তারা এখন ভীত আছে যে ভারত কোন প্রকার একটি বড় অ্যাকশন নিতে চলেছে বলে অনুমান তাদের। এমনকি আপনাদের বলে রাখি পাকিস্তান এই মুহূর্তে ফায়ার ব্রিগেডের নিযুক্তি এবং জলের যোগান করতে শুরু করে দিয়েছে যাতে ভারত আক্রমণ করলে তাদের ক্ষতির সম্ভাবনা কমানো যায়।

Related Articles

Back to top button