খেলাধুলাদেশনতুন খবরবিশেষ

ভারত বনাম বাংলাদেশ পিঙ্ক টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসে এক ঐতিহাসিক জয় হাসিল করলো ভারত…

ঠিক যেমনটা প্রত্যাশিত করেছিল প্রত্যেক ভারতীয় ক্রিকেটপ্রেমীরা ঠিক সেরকমই রবিবার দিন ইডেন গার্ডেনে ঘটলো। অর্থাৎ বলা যেতে পারে একেবারে প্রত্যাশিত ফলাফল। আজ রবিবার দিন দুপুরে শেষ হয়ে গেল ভারতের মাটিতে প্রথম দিন রাতের পিঙ্ক বলের ভারত বনাম বাংলাদেশের এক ঐতিহাসিক টেস্ট ম্যাচ। কলকাতার মাটি ইডেন গার্ডেন্সে বাংলাদেশকে এক দুর্দান্ত ইনিংসের দরুণ হারাল ভারত। যেখানে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের মুশফিকুরের ওপর ভর করে ইনিংস হারের লজ্জা এড়ানোর তৃতীয় দিনের লক্ষ্য ছিল, সেই লক্ষ্য সফল হতে দিলো না ভারতীয় বোলাররা।

ভারতীয় বোলাররা সুযোগ দিতে রাজি ছিল না একদমই। গতকাল শনিবার বিকেলে পর থেকেই লক্ষ্য করা যায় ইনিংস বাঁচানোর লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। কিন্তু সেই শেষ রক্ষা আর হলো না তাদের। তারা যে আশঙ্কাটা করেছিল অর্থাৎ মুশফিকুরের ব্যাটিং এর উপর ভরসা করে ভারতীয় বোলারদের চকমা দেওয়ার সেটা আর কাজে এলো না তাদের।অবশেষে এক ইনিংসে 46 রানে ভারতীয় বোলারদের কাছে আত্মসমর্পণ করলো বাংলাদেশের মহাম্মদুল্লাহ ক্রিকেট বাহিনী।

আজ রবিবার দিন ম্যাচের তৃতীয় দিন আর এখানে 43 রানে বাংলাদেশের বাকি তিনটি উইকেট তুলে নিয়ে এই পিঙ্ক টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে গন্ডি টেনে দিলেন উমেশ যাদব। হ্যামস্ট্রিংয়ে চোটের কারণে দ্বিতীয় ইনিংসে আর ব্যাট করতে নামেননি মহমুদুল্লাহ। দুই ইনিংশ মিলিয়ে মোট 9 উইকেট নিয়ে এই ঐতিহাসিক টেস্ট ম্যাচের ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ নির্বাচিত হলেন ইশান্ত শর্মা। যদিও এর আপেক্ষিক ফলাফল গতকালই সকল ক্রিকেটপ্রেমী রা বুঝতে পেরে গিয়েছিল। তবু আজ রবিবার দিন সকালে সেটাতে যেন সীলমোহর পড়া বাকি ছিল যা ভারতীয় দল মাঠে নেমে পরিষ্কার করে দিল।

যদিও বাংলাদেশের হার সুনিশ্চিত জানা সত্ত্বেও মুশফিকুরের নেতৃত্বে অন্তত ইনিংসের হার বাঁচাতে চেষ্টার ত্রুটি রাখেনি বাংলাদেশের টেল-এন্ডাররা। 152 রানে 6 উইকেটে খেলা শুরু করে বাংলাদেশ এই দিন তবে কোনো রান যোগ না করেই সপ্তম উইকেটের পতন হয় বাংলাদেশের। আর তারপরই উমেশ যাদবের লাফিয়ে ওঠা বল ইবাদত হোসেনের ব্যাটের কানায় লেগে চলে যায় স্লিপের দিকে চলে যায় তবে সেখানে দাঁড়িয়ে ছিলেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি, যিনি এই ক্যাচটিকে হাতছাড়া করেননি একদম।আর এরপরই দেখা যায় অষ্টম উইকেটে আল-আমিন হোসেনের সঙ্গে জুটিতে 32 রান যোগ করে বাংলাদেশের শেষ আশা ভরসা মুশফিকুর আউট হয়ে যান।

অন্যদিকে চোটের কারণে দ্বিতীয় ইনিংসে মহমুদুল্লাহ আর ব্যাট হাতে মাঠে নামতে পারেননি তাই বাংলাদেশের ক্রিকেটার মুশফিকুর ফেরাতেই বাংলাদেশের ইনিংসের হার নিয়ে সমস্ত সংশয় দূর হয়ে যায়। দিনের নবম ওভারে উমেশ যাদবের ডেলিভারি আল আমিনের ব্যাট ছুঁয়ে ঋদ্ধির হাতে জমা পড়তেই যবনিকা পড়ে পিঙ্ক বল টেস্টের। তাও আবার আড়াই দিনেরও কম সময়ে। ভারতীয় দলের এরকম এক জয়ের একাধিক নজির জমা পড়লো ভারতীয় দলের রেকর্ড বুকেও। প্রথম টেস্ট দল হিসাবে ভারতীয় দল টানা চারটি ম্যাচ জেতার রেকর্ড গড়ল বিরাট বাহিনী। এর পাশাপাশি সাতটি টেস্ট ম্যাচ জিতে নতুন নজির গড়ল ভারতীয় দল। আর তার সাথে সাথে টানা ম্যাচ জয়ের নিরিখে এটাই সর্বকালের রেকর্ড ভারতীয় দলের।

Related Articles

Back to top button