ব্রহ্মপুত্র নদের নীচে নির্মাণ হবে ভারতের প্রথম আন্ডার ওয়াটার টানেল, মঞ্জুরি দিলেন খোদ মোদী সরকার

সম্প্রতি ভারত ও চীনের মধ্যে হওয়া বিবাদকে কমানোর জন্য দুই দেশের মধ্যে গতকাল 14 ঘণ্টার ম্যারাথন সৈন্য বৈঠক হয়েছে। যদিও এই বিবাদের পর থেকেই ভারত সরকারকে একের পর এক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে দেখা যাচ্ছে আর এখন যে খবরটি বেরিয়েছে সেখানে জানতে পারা যাচ্ছে কেন্দ্রে ক্ষমতায় থাকা মোদি সরকার এবার অরুণাচল প্রদেশ থেকে অসম পর্যন্ত সড়ক পরিবহন মজবুত করার কাজ শুরু করে দিয়েছেন। শুধু তাই নয় ইতিমধ্যে কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বম্মপুত্র নদের নীচ থেকে 14.85 কিলোমিটার বিস্তীর্ণ দীর্ঘ একটি টানেল বানানোর।

আর এক্ষেত্রে আপনাদের জানিয়ে রাখি এটি দেশে প্রথমবার হবে যখন নদীর নীচের মধ্যে বানানো এই টানেল পূর্ব চীনের বানানো তাইহু লেকের টানেলের থেকেও দীর্ঘ হবে। বলে রাখি ইতিমধ্যে কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে অসমের গহপুর থেকে নুমালিগড় কে একসাথে যুক্ত করার জন্য ব্রহ্মপুত্র নদের নীচে চার লেনের সড়ক টানেল বানানোর মজুরি প্রদান করা হয়েছে। আমেরিকা কোম্পানির তরফ থেকে এক্ষেত্রে সড়ক পরিবহন ও জাতীয় হাইওয়ের অবকাঠামো উন্নয়ন কর্পোরেশন লিমিটেডের তরফ থেকে নদীর নিচে তৈরি করা টানেলের প্রজেক্ট রিপোর্টের মঞ্জুরি দিয়েছে।

এক্ষেত্রে ব্রহ্মপুত্র নদের নীচে যে 15 কিলোমিটার বিস্তীর্ণ দীর্ঘ ট্যানেলটি তৈরি করা হচ্ছে সেটির প্রক্রিয়া ফিজিবিলিটি রিপোর্ট আর ডিপিআর তৈরি করছে।

এই টানেলের বিশেষত্ব ও গুরুত্ব কী? সবার প্রথমেই বলে রাখি এই টানেলটির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হবে এর ভেতর দিয়ে সৈন্য বাহন এবং হাতিয়ার সুসজ্জিত বাহন 80 কিলোমিটার প্রতি ঘন্টার গতিতে ছুটতে পারবে। এর গুরুত্ব রয়েছে এটি আসাম আর আরুনাচল প্রদেশ কে একসাথে যুক্ত করবে।আপাতত প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা যাচ্ছে সেখানে জানা যাচ্ছে যে এই টানেল তৈরি করার জন্য যে যে প্রক্রিয়া গুলি করার প্রয়োজন সেগুলি সম্পন্ন করা হয়েছে এবং এটির তৈরির কাজ শুরু করা হবে আগামী ডিসেম্বর মাস থেকেই।

এর আগে পূর্ব চীনের তাইহু লেকের নীচে যে টানেলটি রয়েছে সেটি দৈর্ঘ্য ছিল প্রায় 10.79 কিলোমিটার, তবে এবার ভারত যে টানেলটি বানাতে চলেছে সেই টানেলটি চীনের এই টানেলটির তুলনায় অনেকগুণ বেশি দীর্ঘ। শুধু তাই নয় এই টানেলের মধ্যে আসা- যাওয়ার জন্য আলাদা রাস্তা বানানো হবে এবং টানেলের ভেতর যাতে জল না ঢুকে তার জন্য সুরক্ষার ব্যবস্থা করা হবে। যদিও এই টানেল বানাতে একাধিক সমস্যা আসতে পারে এবং এই টানেলের মধ্য দিয়ে যাতায়াত করার জন্যও সমস্যা হতে পারে, তবে এক্ষেত্রে জলের ভিতর টানেল হওয়ার কারণে পেশার কম হবে,এক্ষেত্রে এইসব সমস্যা গুলি মোকাবেলা করার জন্য রাখা হবে ভেন্টিলেশন সিস্টেম, ফায়ারফাইটিং, লাইটিং সিস্টেম এবং এমারজেন্সি এক্সিট এর মতো ব্যবস্থা।

Related Articles

Back to top button