দেশনতুন খবরবিশেষভারতীয় সেনা

আর চীনকে বিশ্বাস করতে চাইছে না ভারত, তাই লাদাখ ছাড়াও পুরো সীমান্ত মুড়ে ফেলেছে ভারতীয় সেনা..

লাদাখ সীমান্তে বেশ কিছুদিন ধরেই ঘাঁটি গেড়ে বসে আছে চীনা সৈন্যরা। যদিও চীন ভারতের বৈঠক করার পর কিছুটা হলেও সীমান্ত থেকে পিছু হাটে চীনের সৈন্যরা। এক্ষেত্রে গত শনিবার দিন দুই দেশের সেনা কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করার পরও পরিস্থিতি কিছুটা হলেও ঠিক হয়েছে কিন্তু এখনও পর্যন্ত পুরোপুরি ঠিক হয়নি। ভারত ইতিমধ্যেই পুরো ‘লাইন অফ একচুয়াল কন্ট্রোল’ ধরে সেনা মোতায়ন করা হয়েছে। কারণ ভারত এ ব্যাপারে চীনকে বিশ্বাস করতে পারছে না।

তাই নিজের এলাকাকে রক্ষা করতে ভারতের এমন সিদ্ধান্ত। ইন্ডিয়া টুডেতে প্রকাশিত এক রিপোর্ট অনুসারে জানা গিয়েছে,’ চীন এর আগে ভারতের সাথে যা করেছে তাতে চীনের ওপর ভারত একটুও বিশ্বাস করবে না। তাই পুরো এলাকাজুড়ে অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করেছে ভারত। শুধুমাত্র লাদাখ নয় উত্তরাখণ্ড, সিকিম, অরুণাচল প্রদেশ, হিমাচল প্রদেশে অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করা আছে। এর পাশাপাশি হিমাচল প্রদেশের চীন সীমান্ত জুড়ে ইতিমধ্যেই অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

সেই এলাকা পরিদর্শনে গিয়েছিলেন খোদ লেফট্যানেন্ট জেনারেল আরপি সিং। উত্তরাখণ্ডের পরিস্থিতিও ঠিক হিমাচল প্রদেশের মত সেখানেও কড়া নজরদারিতে রয়েছে সীমান্তবর্তী এলাকারগুলি।এছাড়াও এমার্জেন্সির জন্য উত্তরাখণ্ডে অ্যাডভান্স ল্যান্ডিং গ্রাউন্ড বানিয়ে ফেলেছে ভারতীয় বায়ুসেনা। ভারতীয় সেনা যে, যেকোন পরিস্থিতির মোকাবিলা করার জন্য প্রস্তুত রয়েছে সব সময়। কয়েকদিন ধরেই চীনের চপার ভারত-চীন সীমান্তে ঘোরাঘুরি করছে তা লক্ষ্য করেছে ভারতীয় সেনা।

তাদের কথামতো প্রথমে মঙ্গলবার থেকেই সীমান্ত থেকে চীনের সেনা সরিয়ে নেওয়ার কাজ শুরু করেছে। কিন্তু আদৌ কী সীমান্ত থেকে চীনের সেনারা সরে যাচ্ছে তা জানতে শুরু হয়েছে তদন্ত। কিন্তু ভারত জানতে পারে এতদিন ধরে যা ভাবা হচ্ছিল তার থেকে অনেক বেশি সেনা, বেজিং মোতায়েন করেছে পূর্ব লাদাখ সীমান্তে। ভারত চাইছে চীনেন 10,000 সেনা সরাক। ভারত এই ইস্যুতে একদম কঠোর। ভারত চীনকে স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছে তারা যদি 10 হাজার সেনা সরায় তবেই ভারত সেনা সরানোর প্রক্রিয়া শুরু করবে।

Related Articles

Back to top button