দেশনতুন খবরবিশেষরাজনৈতিক

বড়ো সাফল্য ভারতের, এবার লাদাখ সীমান্ত থেকে 2 কিমি পিছুপা হাঁটতে বাধ্য হল চীনা সৈনিকেরা..

সম্প্রতি কয়েক দিন আগেই লাদাখ সীমান্ত নিয়ে ভারত ও চীনের মধ্যে বিতর্ক সৃষ্টি হয়। লাদাখ সীমান্তে LAC এর উপরে রয়েছে দুই দেশের সেনা। এই মাসের 6 জুন অর্থাৎ শনিবার সেনা পর্যায়ের বৈঠক হবে ভারত ও চীনের মধ্যে। এই বৈঠকের প্রস্তাব প্রথমে ভারতেই দিয়েছিল চীনকে। ভারতের এই প্রস্তাবকে মান্যতা দিয়ে চীন এই বৈঠকে বসতে রাজি হয়ে যাই। এরপরে শনিবার এই বৈঠক করা হবে বলে ঠিক করা হয় দুই দেশের মধ্যে। এই বৈঠকে ভারতীয় সেনার হয়ে নেতৃত্ব দেবেন 14 কোরের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরিন্দর সিংহ।

ভারতীয় সেনার তরফ থেকে এক খবর সূত্রে জানা গেছে, এই বৈঠক সম্পর্কে আগেই আন্তরিকতার বার্তা দিয়েছে চীন। এ নিয়ে কূটনৈতিক মহল এবং বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, লাদাখে LAC নিয়ে দুই দেশেই চাইছে শান্তি- শৃঙ্খলা বজায় থাকুক। তবে অনেকেরই মতে আবার ডোকালামের মতোন কয়েক মাস ধরে সেনা মোতায়েন করে রাখার ফলে এক উত্তেজনার পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে লাদাখ সীমান্তে।

গত মাসের শেষের দিকে অর্থাৎ মে মাসে পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত হয়ে উঠে যে, প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদি বৈঠক করেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা সহ সেনাপ্রধান এর উচ্চপদস্থ কর্তাদের নিয়ে। অপরদিকে আবার এ ব্যাপারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দুই দেশের মধ্যে মধ্যস্থতা করে নেওয়ার প্রস্তাব দেন। কিন্তু ডোনাল্ড ট্রাম্পের সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে দুই দেশেই। এরপরে কিছুদিন যাবার পর ধীরে ধীরে দুই দেশেই এ ব্যাপারে সমঝোতার পথে হাঁটছে। আর শনিবারে এই বৈঠকের পরে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা আর একটু নমনীয় হবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন।

লাদাখে গালভান উপত্যাকা যে জায়গায় ভারত ও চীনের সেনারা ছিল সেখান থেকে দুই দেশের সেনারা পিছিয়ে গেছে। যা দুই দেশের ক্ষেত্রেই অনেকটা ভালো বলে মনে করেছেন অনেকেই। খবর সূত্রে জানা গেছে এই সীমান্ত থেকে চীনের সেনারা প্রায় 2 কিলোমিটার পিছিয়ে গেছে এবং ভারতীয় সেনারা 1 কিলোমিটার পিছিয়ে গেছে। এই অঞ্চলে প্রায় কয়েক সপ্তাহ ধরে দুই দেশের সেনারাই একদম চোখাচোখি দাঁড়িয়ে রয়েছে। এখন শনিবার এই বৈঠকে কী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে সেই দিকেই তাকিয়ে আছে দুই দেশ। তবে এই বৈঠক দুই দেশের ক্ষেত্রে যে লাভজনক হবে তা স্পষ্টভাবে বোঝা যাচ্ছে এখন থেকে।

Related Articles

Back to top button