ভারতের জয়পুরে তৈরি হতে চলেছে বিশ্বের তৃতীয় বড় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, খরচ হবে 650 কোটি টাকা , থাকবে একাধিক সুবিধা

বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম ক্রিকেট স্টেডিয়ামটি তৈরির প্রস্তুতি শুরু হয়েছে জোরকদমে। এই স্টেডিয়ামটি রাজস্থানের রাজধানী জয়পুরে নির্মিত হবে। এর জন্য গত ২ জুলাই জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল। এই যে ক্রিকেট স্টেডিয়ামটি রয়েছে সেটি চম্পা গ্রামে প্রস্তুত করা হবে। এই বছরের শুরুর দিকে, রাজস্থান ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান বৈভব গহলোত ঘোষণা করেছিলেন যে জয়পুরে একটি নতুন ক্রিকেট স্টেডিয়াম তৈরি করা হবে। যাই হোক, গত কয়েক বছর ধরে রাজস্থান নতুন স্টেডিয়ামের জন্য আলোচনা চলছে।

ললিত মোদী যখন আরসিএর প্রধান ছিলেন, তখন তিনি স্টেডিয়াম তৈরির কথাও বলেছিলেন। তবে তখন কিছুই হয়নি তবে এবার প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। তাহলে এই স্টেডিয়ামটি কীভাবে হবে এবং এর মধ্যে কী বিশেষ হবে, আসুন জেনে নেওয়া যাক।জয়পুর শহরের বাইরে নতুন ক্রিকেট স্টেডিয়াম তৈরি করা হবে। এটি দুই ধাপে প্রস্তুত হবে। প্রথম পর্যায়ে ৪৫ হাজার দর্শকের বসার ক্ষমতা নিয়ে স্টেডিয়ামটি প্রস্তুত করা হবে। পরে এর ক্ষমতা আরও 30 হাজার বাড়ানো হবে। এই উপায়ে সম্পূর্ণ প্রস্তুত হয়ে গেলে মোট 75 হাজার দর্শক এই স্টেডিয়ামে বসতে পারবেন।

এর অর্থ এটি বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম ক্রিকেট স্টেডিয়াম হবে। গুজরাটের নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়াম এক নম্বরে। এর শ্রোতার সক্ষমতা ১.১০ লক্ষ। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন ক্রিকেট স্টেডিয়াম। এটি এক লক্ষ দর্শককে বসতে পারে।নতুন এক স্টেডিয়ামটি 100 একর জমিতে প্রস্তুত হবে। এতে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে 650 কোটি টাকা। প্রথম পর্যায়ে ব্যয় হবে 300 কোটি টাকা। এর জন্য বিসিসিআই 100 কোটি টাকা দেবে এবং 100 কোটি টাকা লোন দেওয়া হবে।

একই সাথে আরসিএ 90 কোটি টাকার ব্যবস্থা করবে। এজন্য কর্পোরেট বক্স বিক্রি করার চেষ্টা করা হবে। এই স্টেডিয়ামটি পুরোপুরি প্রস্তুত হতে পাঁচ বছর সময় লাগবে। একই সঙ্গে আড়াই থেকে তিন বছরের মধ্যে প্রথম পর্যায়ের কাজ শেষ করার প্রস্তুতিও চলছে। এই স্টেডিয়ামটি তৈরির কাজ 75 দিনের মধ্যে শুরু হবে। এই স্টেডিয়ামটি জয়পুর-দিল্লি মহাসড়কের পাশেই নির্মিত হবে।

এই ক্রিকেট স্টেডিয়ামটিতে দুটি অনুশীলন মাঠ, একাডেমি, ক্লাব হাউস, হোটেল, ক্রিকেট একাডেমি, ছাত্রাবাস, জিম, পার্কিং সুবিধা এবং আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামের বাকি অংশের মতো প্রয়োজনীয় সুবিধা থাকবে। আহমেদাবাদে ভারত- ইংল্যান্ডের মধ্যে সিরিজ হওয়ার আগে আরসিএ সভাপতি বৈভব গহলোত নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়ামে গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি বিসিসিআই সচিব জে শাহের সাথে সাক্ষাত করেন। তারপরে তিনি নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়াম সম্পর্কেও তথ্য নিয়েছিলেন।

এখনই রাজস্থানের বৃহত্তম ক্রিকেট স্টেডিয়ামটি সওয়াই মন সিং স্টেডিয়াম। তবে এটি আরসিএর নয়। এটি রাজস্থান সরকারের অধীনে আসে। ম্যাচগুলি খেলতে আরসিএকে সরকারের কাছ থেকে স্টেডিয়াম নিতে হবে। এর পাশাপাশি এই ক্ষেত্রটি অনেক সরকারী কাজেও আসে। এই অর্থে আরসিএ নতুন স্টেডিয়ামের মধ্য দিয়ে স্বনির্ভর হওয়ার দিকে এগিয়ে চলেছে।