বেড়েছে তাপমাত্রার পারদ! রাজ্যজুড়ে আবারো বৃষ্টির ভ্রুকুটি, তালিকায় রয়েছে একাধিক জেলার নাম

কালীপূজার পর রাজ্যে ভালোই শীতের আমেজ পাওয়া যাচ্ছিল। অনেক বাঙালির আলনাতেই বেরিয়ে পড়েছিল হালকা শীতের পোশাক। ভোররাতে প্রয়োজন পড়ছিল হালকা কাঁথার। কিন্তু গত দু’দিন ধরে শহরের তাপমাত্রা বাড়লো। সকালের দিকে হালকা শীতের আমেজ থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে তাপমাত্রা বাড়তে থাকবে। গতকাল থেকে রাতের দিকেও তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করেছে। সম্প্রতি আবহাওয়া দপ্তর এর তরফ থেকে জানানো হলো ফের বঙ্গোপসাগরে একটি নিম্নচাপ ঘনীভূত হয়েছে।

বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ এর ফলে দক্ষিণবঙ্গের বেশকিছু জেলায় আজ থেকে বৃষ্টি হতে পারে। কলকাতা এবং কলকাতা সংলগ্ন এলাকায় সোমবার থেকে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে। কদিন ধরেই তাপমাত্রা একটু বেশি রয়েছে। যে শীতের আমেজ পড়েছিল তা এখন ছিটেফোঁটাও নেই । আবহাওয়া দপ্তর এর তরফ থেকে জানানো হচ্ছে বঙ্গোপসাগরে গভীর নিম্নচাপ এর ফলেই তাপমাত্রা বৃদ্ধি প্রাপ্ত হচ্ছে। রাতের দিকে সেভাবে তাপমাত্রার পরিবর্তন হচ্ছে না।

তারফলে জানলা দরজা বন্ধ রাখতে হচ্ছে। কিন্তু জানলা দরজা বন্ধ রাখলেও গরম লাগছে। তাছাড়া বঙ্গোপসাগরে পূর্বালী হাওয়া ঢুকতে শুরু করেছে। যার জেরে বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে উত্তরে হাওয়া। ফলে শীতের আমেজ নেই রাজ্যে। শহরের আজ সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৯.৯ ডিগ্রী সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩০.৭ ডিগ্রী সেলসিয়াস।কয়েকদিন আগে থেকেই আবহাওয়া দপ্তর নিম্নচাপের পূর্বাভাস দিয়েছিল। সেই মতো শনিবার থেকেই বৃষ্টির সম্ভাবনা ছিল । পূর্ব মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম সহ দক্ষিণবঙ্গের বেশকিছু জেলায় বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে ।

এছাড়া উপকূলবর্তী এলাকাতে ও বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। নিম্নচাপটি ধীরে ধীরে অন্ধ উপকূলের দিকে সরে যাচ্ছে। এর ফলে বুধবার থেকে আবার আকাশ পরিষ্কার হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। শনিবার থেকেই আকাশে মেঘ জমতে শুরু করেছে। ফলে কলকাতা এবং কলকাতার সংলগ্ন এলাকায় সোমবার থেকেই বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । ইতিমধ্যেই রাজ্যে বঙ্গোপসাগর থেকে প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্প সম্পূর্ণ বাতাস ঢুকতে শুরু করেছে । ফলে শীত বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে ।

সোমবার থেকে বৃষ্টিপাতের ফলে বাতাসের তাপমাত্রা বাড়তে পারে। সোমবার মেঘলা আকাশ থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। আবহাওয়া দপ্তর থেকে বলা হচ্ছে কলকাতা, দুই মেদিনীপুর, দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং ঝাড়গাম এলাকায় বৃষ্টি হতে পারে। আপাতত নভেম্বর মাসে এই নিম্নচাপ এর ফলে শীত বাধাপ্রাপ্ত হবে । এই সময় আবহাওয়া তাপমাত্রা বেশ কিছুটা বাড়বে। উত্তরের হাওয়া বাধাপ্রাপ্ত হবার জন্য তাপমাত্রা আর সেভাবে এখন নামবে না ।

ফলে রাজ্যে নভেম্বর মাসে সেভাবে শীত অনুভূত হবে না। তবে ডিসেম্বর মাসে অল্প অল্প শীত অনুভূত হলেও ১৫ ডিসেম্বরের পর থেকে জাঁকিয়ে শীত পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে । তার ফলে যে সমস্ত রাজ্যবাসীর জাঁকিয়ে শীত পড়ার জন্য দিন গুনছেন তাঁদের জন্য শীতকে সঙ্গে নিয়ে বড়দিন উপভোগ করবার ভালো সুযোগ আসতে চলেছে।