কলকাতানতুন খবরবিশেষরাজ্য

বাড়লো কন্টেনমেন্ট জোন, কোন কোন ক্ষেত্রে মিলবে ছাড়- নতুন তালিকা প্রকাশ রাজ্য সরকারের

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে। আর সেই কারণে রাজ্যে করোনা ভাইরাসের কনটেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা বাড়ল। আগে রাজ্যে কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা ছিল 444।এবং বর্তমানে সেই সংখ্যা বেড়ে হয়েছে 516 টি। আর এর মধ্যে কলকাতাতে কনটেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা 318 টি। আর এরপরে সোমবার লকডাউন এর মধ্যে যে সমস্ত জিনিসের ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে সেগুলি ঘোষণা করা হয়েছে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে। অবশ্য এর আগে ঘোষণা হয়ে গিয়েছিল।

সেই অনুসারে নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে আর কোন কোন নতুন জিনিসে ছাড় দেওয়া হয়েছে সেগুলি জানিয়েছেন মুখ্য সচিব রাজিব সিংহ। এর মধ্যে অন্যতম হলো গ্রীন জোনে বাস চলাচল শুরু করা। তবে বাস চললেও কুড়ি জনেরও বেশি যাত্রী নিয়ে চালানো যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে রাজ্য সরকার এবং বাসগুলিকে প্রতিনিয়ত জীবাণুমুক্ত করতে হবে। মাক্স ছাড়া কোন যাত্রী যাতে বাসে প্রবেশ করতে না পারে সেই বিষয়টি লক্ষ্য রাখতে হবে বলে জানিয়েছে রাজ্য সরকার।

অত্যাবশ্যকীয় নয় এমন দোকান খোলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে। এমন কী বেসরকারি অফিস খোলা যাবে বলে জানানো হয়েছে। কিন্তু সে ক্ষেত্রে মাত্র 25% কর্মচারীদের নিয়ে কাজ চালাতে হবে। এছাড়াও চা- পানের দোকান খোলা রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু দোকানে খাওয়ার জন্য অনুমতি দেয়নি সরকার। বাড়িতে নিয়ে এসে বা অফিসে নিয়ে এসে খেতে হবে। সকাল দশটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখার জন্য বলেছে রাজ্য সরকার। কিন্তু কনটেনমেন্ট জোন এলাকায় কোন দোকানপাট খোলা রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়নি।

এছাড়াও শপিং মনের ভিতর অনেক অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের দোকান রয়েছে সেই সমস্ত দোকানগুলো খোলা যাবে কিনা সে সম্পর্কে প্রশাসনিক স্তরে আলোচনা হওয়ার পরে জানা যাবে। এছাড়াও খনি ও শিল্পাঞ্চলে কাজ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। মুখ্যসচিব  এনিয়ে বলেন, ” কেন্দ্রের নির্দেশিকা অনুসারে অনেক কিছু খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু যেভাবে সব কিছু খোলা হচ্ছে তাতে ভয় বাড়ছে।  এমন হলে আবার লকডাউন লগু হয়ে যাবে। আমাদের দেখতে হবে যাতে মানুষ বাঁচে। তাই অনেক ভেবে চিন্তে এগোতে হচ্ছে আমাদের।”যে সমস্ত এলাকায় করোনা ভাইরাসের প্রকোপ সবচেয়ে বেশি সেই সমস্ত এলাকা গুলিকে কনটেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করে পুরোপুরি সিল করে দেওয়া হয়েছে। সোমবার বিকেলে রাজ্য সরকারের দেওয়া তথ্য অনুসারে সবচেয়ে বেশি কনটেনমেন্ট জোন এলাকা রয়েছে কলকাতা। এরপরের উত্তর 24 পরগনা এবং হাওড়া। এছাড়াও একসঙ্গে 7 জনের বেশি এক জায়গায় জমায়েত করা যাবে না বলেও জানানো হয়েছে ওই নির্দেশিকাতে। এছাড়া  ব্যাংক, পোস্ট অফিস, রেশন দোকানে একসঙ্গে 7 জনের বেশি জমায়েত করা যাবে না।

Related Articles

Back to top button