আরো একবার ভারতের বিরুদ্ধে তোপ দাগতে গিয়ে হাসির পাত্র হলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান….

আন্তর্জাতিক মঞ্চে আবারও পাক প্রধানমন্ত্রী ভারতের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে গিয়ে হাসির পাত্র হলেন।আন্তর্জাতিক মঞ্চে দাঁড়িয়ে পাক প্রধানমন্ত্রী ভারতের সংখ্যালঘুদের উপর তোপ দাগলেন বললেন ভারতের সংখ্যালঘুদের ওপর এবার ভবিষ্যতের বড়ো সংকট আসতে চলেছে। তবে ভারতের তরফ থেকে এর পাল্টা জবাব দিতে বাদ গেলেন না ভারতের বিদেশমন্ত্রক, ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের তরফ থেকে মনে করিয়ে দেওয়া হল পাক প্রধানমন্ত্রীকে তার দেশের সংখ্যালঘুদের অবস্থানের কথা।

মঙ্গলবার দিন জেনেভার বিশ্ব শরণার্থী সম্মিলনে কাশ্মীর সমস্যা ও দেশের নাগরিকত্ব আইনের প্রসঙ্গে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, বলেন ভারতে কয়েক লক্ষ মুসলমান এই মুহূর্তে বিপন্ন পর্যায়ে রয়েছে। ইমরানের এরকম এক বিবৃতিতে জবাবে বিদেশ মন্ত্রকের তরফ থেকে পাল্টা জবাব দেওয়া হয় আরও একবার ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানোর চেষ্টা করছে পাক প্রধানমন্ত্রী বলে।

তবে এখানেই শেষ নয় বিবৃতিতে আরও বলা হয় গত 72 বছর ধরে পাকিস্তান নিয়মিত নিয়ম করে সংখ্যালঘুদের তাড়িয়েছে তাদের দেশ থেকে এমনকী অনেকের সাথে জোরপূর্বক বল প্রয়োগ করে ধর্ম পরিবর্তন করা হয়েছে। আর যেসব সংখ্যালঘুরা সেখান থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে তাদের একটা বড় অংশ আশ্রয় নিয়েছে আজ ভারতে। শুধু তাই নয় 1971 এর কথা তুলে ধরে পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমানে যা বাংলাদেশ) পাক সেনার অত্যাচারের কোথাও তুলে আনা হয়।

এইদিন জেনেভার বিশ্ব শরণার্থী মঞ্চ থেকে পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন ভারতে যে রিফিউজি সমস্যা তৈরি হচ্ছে তার তুলনায় অন্য সমস্যা গুলি অত্যন্ত নগণ্য, তাই এই বিষয়ে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপের প্রয়োজন আছে বলে দাবি করেন তিনি।পাক প্রধানমন্ত্রী দাবি করে জানান যে কোনদিন ভারত ছাড়তে হতে পারে লক্ষ লক্ষ মুসলিম শরণার্থীদের। তবে তারই সাথে তিনিও এ কথাও জানিয়ে দেন যে এইসব ভারতীয় সংখ্যালঘুদের জায়গা দেওয়ার মত অবস্থা পাকিস্তানের নেই বলেও।আর এরই পাল্টা জবাবে ভারতীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফ থেকে ইমরানের উদ্দেশ্যে বলা হয় আপনি ভারতের আভ্যন্তরীন ব্যাপারে নাক না গলিয়ে আপনার পাকিস্তানের উচিত নিজেদের দেশে সংখ্যালঘুদের অধিকার কে রক্ষা করা।