অবশেষে স্বীকারোক্তি পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের বলল পাক অধিকৃত বালাকোটে বড়োসড়ো হামলা করেছিল ভারত..

অবশেষে ভারতকে নিশানা করতে গিয়ে পাকিস্তানের বালাকোটে এয়ারস্ট্রাইকের ফলে যে বড়োসড়ো ক্ষতি হয়েছে তা নিজেই স্বীকার করলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তবে আপনাদের বলে রাখি এই এর আগে প্রথম থেকে পাকিস্তান দাবি করে আসছিল যে বালাকোটে ভারতীয় বায়ু সেনা যে এয়ারস্ট্রাইক করেছে তার ফলে মাত্র দু চারটে গাছ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে গতকাল বুধবার দিন নিজের মুখ থেকে বড়সড় হামলার কথা মেনে নিলেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

তবে এখানেই শেষ নয় তার সঙ্গে তিনি আরো আশঙ্কা করলেন পাক অধিকৃত কাশ্মীরে আবারো ভয়ংকর হামলা করতে পারে ভারত। এই দিন ইমরান খান বলেন আমার কাছে এখন তথ্য রয়েছে দু’দফায় জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক ও করেছি এই নিয়ে পাকসেনারা ও জানে আজাদ কাশ্মীরে হামলার পরিকল্পনা করছে ভারত। যেমনটা তারা পুলওয়ামার হামলার পর বালাকোটে হামলা করেছিল।

https://twitter.com/dhaval241086/status/1161609653459083264?s=19

তবে এবার যে পরিকল্পনা করা হচ্ছে তাদের তরফ থেকে তা বালাকোটের হামলা চেয়েও ভয়ঙ্কর পরিকল্পনা।তবে এখানেই শেষ নয় তিনি আরো দাবি করেন এবার গোটা বিশ্বের নজর ঘোরানোর জন্য আজাদ কাশ্মীরে বড়োসড়ো হামলা করতে চাইছে ভারত। যেমন কি আপনারা জানেন ভারতের পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পর ভারতীয় বায়ুসেনা বাহিনী তার বদলা নেওয়ার জন্য পাক অধিকৃত কাশ্মীরের বালাকোটের জইশ-ই-মহম্মদের ঘাঁটিগুলোকে লক্ষ্য করে বোমা বর্ষণ করে। যার দরুন খতম করা সম্ভব হয়েছিল কয়েক শো জঙ্গীকে। তবে এই ঘটনার পর পাকিস্তান দাবি করে যে ভারতীয় বায়ুসেনা যে হামলা করে তার ফলে তাদের কোনো ক্ষতি হয়নি শুধু মাত্র দু’চারটে গাছে বোমা পড়েছে।কিন্তু কতদিন আর সত্যি লুকিয়ে রাখবেন ইমরান খান অবশেষে ধরা পড়লেন তিনি।

গতকাল ইমরান খানের দেওয়া বক্তব্য থেকে এটা পরিষ্কার হয়ে যায় যে বালাকোটে বড়সড় হামলা করেছিল ভারতীয় বায়ুসেনা। নইলে বালাকোটকে কেন গুরুত্ব দিতেন পাক প্রধানমন্ত্রী? একইসঙ্গে বালাকোটের হামলার পর কতটা আশঙ্কায় ভুগছেন, তাও স্পষ্ট করে দিয়েছে তাঁর গলার সুর। অন্যদিকে মোদী সরকার জম্মু-কাশ্মীর থেকে 370 ধারা বাতিল করে দিয়েছে যার ফলে পাকিস্তান ক্ষোভে ফুঁসছে,এরপর ইসলামাবাদ রাষ্ট্রসংঘ থেকে শুরু করে বিভিন্ন দেশের দরবারে গিয়ে তাদের এই দুঃখের কথা জানাচ্ছে তবে কোনো লাভ হয়নি তাদের এতে।রাষ্ট্রসংঘ থেকে শুরু করে বিশ্বের অন্যান্য দেশ পাকিস্তানের সাত দিতে ইচ্ছুক নয় এই বিষয়ে। সকলেই পাকিস্তানের এই প্রস্তাবকে খারিজ করে দিয়েছে।