দেশে নির্বাচনের পরিস্থিতিতে, বিশ্বের বৃহত্তম সংস্থা ভারতকে নিয়ে দিল এমন এক রিপোর্ট যা শুনে কংগ্রেস নেতাদের মধ্যে শুরু হয়ে গেলো সমালোচনার…

বিগত ১৫ বছর ধরে যেখানে অন্যান্য দেশ গুলি নিজে দেরকে আরো উন্নত করে গড়ে তুলছিল সে সময় ভারতের মধ্যে হওয়া ঘোটালা গুলি একের পর এক সামনে আসতে থাকে , আর এই কারণটি হচ্ছে প্রধান কারণ যার জন্য ভারত অন্যান্য দেশের তুলনায় পিছিয়ে রয়েছে। কিন্তু যখন থেকে মোদীজি দেশের শাসনভার সামলেছেন তিনি একের পর এক ভারতকে উন্নততর শিখরে নিয়ে গেছেন। IMF এবং ওয়ার্ল্ড ব্যাংক এবার ভারতকে মর্যাদা দিতে বাধ্য হয়েছে। ভোট চলাকালীন সময়েই IMF ভারতের কাছে কিছু আশ্চর্যকর রিপোর্ট পেশ করল। সূত্রের খবর অনুসারে, আন্তরাষ্ট্রীয় মুদ্রা কেন্দ্র(IMF) জানালো যে ভারত অর্থনৈতিক দিক থেকে আগের তুলনায় অনেক বেশি এগিয়ে।

সেই সঙ্গে তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির অনেক নামও করলেন।(IMF) এর সূচনা নির্দেশক গৌরী রাইস বললেন, ভারত আজ যেখানে দাঁড়িয়ে রয়েছে এগুলো সবই বিগত পাঁচ বছরের মধ্যে অর্থনৈতিক দিক থেকে নেওয়া কঠোর সিদ্ধান্তের জন্যই সম্ভব হয়েছে এবং সেই সঙ্গে তিনি এও বললেন, এই অর্থব্যবস্থাকে এমনি ভালোভাবে চালানোর জন্য এর উপর সরকারকে আরও বেশি করে জোর দিতে হবে।তিনি বললেন ভারতের অর্থব্যবস্থা সম্বন্ধে আরও ভালোভাবে জানার জন্য এর আগের মাসে আইএমএফ দ্বারা চালিত ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক আউটলুক (WEO) সার্ভে র দ্বারা জানা সম্ভব হবে। এই রিপোর্টটি বিশ্বব্যাংককে হওয়া বৈঠকের আগে পাওয়া যাবে। আপনাদের জানিয়ে দিই এই রিপোর্টটি, ভারতীয় মূলের আমেরিকা ইকোনমিস্ট গীতা গোপীনাথ এর নেতৃত্বে প্রথমবার জারি করা হবে। গীতা গোপীনাথ কিছু দিন আগেই আইএমএফ এর চিফ ইকনোমিস্ট হয়েছেন। রাইস বললেন,’WEO’এর মধ্যে আপনি বিস্তারিত ভাবে জানতে পারবেন। ২০১৯ এ ভারতের বিকাশদর হবে সব থেকে বেশি:- আন্তরাষ্ট্রীয় মুদ্রা কোষ দ্বারা প্রকাশিত জানুয়ারী বিশ্ব অর্থব্যবস্থা আউটলুকে এটা অনুমান করা হচ্ছে যে ভারতে ২০১৯ এ ৭.৫ শতাংশ এবং ২০২০ তে ৭.৭ শতাংশ বৃদ্ধি হতে পারে।

এবং এটি চীনের আনুমানিত বিকাশের তুলনায় ৬.২ অর্থাৎ ১ পয়েন্ট বেশি। আইএমএফ অনুসারে ২০১৯ এ ভারতীয় অর্থব্যবস্থা বৃদ্ধির পুরোপুরি সম্ভাবনা রয়েছে। এমন অনুমান মূল্য তে কম এবং ম্যাট্রিক কসাবের জন্য লাগানো হচ্ছে। এ সকল কাজ গুলির দ্বারা ভারতের অর্থব্যবস্থার উন্নতি অনেক গুন বেড়ে যাবে। ২০৩০ পর্যন্ত আমেরিকা কেউ পিছে ফেলে দেবে ভারত:- প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সম্মোধন চলাকালীন সময়ে বললেন, ভারতের অর্থব্যবস্থা খুব দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং কিছু সময় আগে ষষ্ঠতম সবচেয়ে বড় অর্থব্যবস্থা রূপে পরিগণিত হয়েছে। যদি এই ভাবে অর্থ ব্যবস্থা বাড়তে থাকে তাহলে কিছু বর্ষের মধ্যেই ভারত সবচেয়ে বড় অর্থব্যবস্থা হয়ে দাঁড়াবে। স্ট্যান্ডেড চারটেড এর একটি রিপোর্ট অনুসারে, ভারত দ্বিতীয় সবচেয়ে বড় অর্থ ব্যবস্থা সংযুক্ত রাজ্য আমেরিকা কে পিছে ফেলে দেবে।

আপনাদের জানিয়ে দিই স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী মোদি জানিয়েছেন, ১০ বছর পর্যন্ত যদি ভারতের দায়ভার তার ওপর দেওয়া হয়, তাহলে তিনি ভারতকে বিশ্বের মধ্যে তৃতীয়তম অর্থব্যবস্থা বানিয়ে তুলবেন। আপাতত ভারত বিশ্বের মধ্যে ক্ষুদ্র সব থেকে বড় অর্থ ব্যবস্থা এবং দুনিয়ার মধ্যে সবচেয়ে দ্রুতগতিতে চলা অর্থব্যবস্থা।